কাঁচা / পাকা আমের উপকারিতা |

আমের উপকারিতা
আমকে বলা হয় ফলের রাজা। মিষ্টি স্বাদ ছাড়াও আমের উপকারিতা অগণিত। এটি শরীরে ভিটামিনের অভাব পূরণের পাশাপাশি কর্মশক্তি যোগায়। ফল হিসেবে খাওয়ার পাশাপাশি আম থেকে মজাদার চাটনি, আমসত্ত্ব, মোরব্বা ও জেলি তৈরি করা যায়।  

আমের বিভিন্ন জাত

পৃথিবীতে অসংখ্য জাতের আম রয়েছে। এর মধ্যে ফজলি, ল্যাংড়া, গোপালভোগ, খিরসা, অরুনা,ক্ষীরভোগ, মোহনভোগ, রাজভোগ, রানিভোগ, চিনি মিছরি, জগৎমোহিনী, রাঙ্গাগুড়ি, মিশ্রিকান্ত, বোম্বাই, পাহাড়িয়া, কাকাতুয়া, চম্পা, সূর্যপুরি, কাঁচামিঠা, আশ্বিনা, আম্রপালি, শ্যামলতা, বাগানপল্লি, দুধসর, কোহিতুর, মিশ্রিদানা, নিলাম্বরী, কালীভোগ, আলফানসো, কারাবাউ, গোপাল খাস, কেন্ট,পাহুতান, ত্রিফলা, হাড়িভাঙ্গা, লখনা, কলাবতী ইত্যাদি বিখ্যাত। একেক জাত, একেক মন ভোলানো ঘ্রাণ, স্বাদের ভিন্নতা এবং বৈশিষ্ট্যের জন্য আমাদের কাছে প্রিয়। মিষ্টতা ও স্বাদে হিমসাগর বা ক্ষীরশাপাতি অনন্য।  

পুষ্টি উপাদান

আমে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ, সি, বি৬, কে, ফলিক অ্যাসিড, প্রোটিন ও ফাইবার রয়েছে। এছাড়াও আম ম্যাগনেশিয়াম, আয়রন, ক্যালসিয়াম, কপার, বিটা ক্যারোটিন ইত্যাদি খনিজে ভরপুর। প্রতি ১০০ গ্রাম আমে ৭০ কিলোক্যালরি কার্বোহাইড্রেট, ০.৫ গ্রাম চর্বি, ১.৮০ গ্রাম ফোলেট, ০.১২৪ মিলিগ্রাম রাইবোফ্লোভিন, ০.০৫৭ মিলিগ্রাম থায়ামিন, ১০ মিলিগ্রাম কপার, এবং ৯ মিলিগ্রাম ম্যাঙ্গানিজ বিদ্যমান।  

কাঁচা আমের উপকারিতা

গ্রীষ্মকালীন ফল আম। গরমে দাবদাহে এক ফালি কাঁচা আম মনে নিয়ে আসে প্রশান্তি। কাঁচা আমের জুস এবং আচার খুবই মুখরোচক। এমনকি ডালের সঙ্গে রান্না করেও খাওয়া যায় কাঁচা আম। কেউ আবার কাঁচা আমের ভর্তা খুব পছন্দ করেন। আসুন জেনে নেই কাঁচা আমের উপকারিতা- ফ্যাট মেটাবলিজমে কাঁচা আম ওজন কমানোর জন্য খুব কার্যকর ভেষজ প্রতিষেধক। আমে প্রচুর পরিমাণ এনজাইম রয়েছে, যা শরীরের প্রোটিনের অণু গুলো ভেঙে ফেলতে সাহায্য করে। ফলে হজম শক্তি বৃদ্ধি পায়। গর্ভাবস্থায় কাঁচা আমের উপকারিতা অন্তঃসত্ত্বা মহিলাদের সকালে উঠার পর বমি বমি ভাব হয়। কাঁচা আম গর্ভবতী মহিলাদের মর্নিং সিকনেসের সমস্যা দূর করে। গর্ভাবস্থায় মায়েরা কাঁচা আম খেলে গর্ভের সন্তানের অ্যান্টিবায়োটিক ক্ষমতা বেশি থাকে। ফলে জন্মানোর পর খুব কমই রোগে আক্রান্ত হয় শিশুরা। মেনোপোজ হওয়া নারীর আয়রনের ঘাটতি পূরণেও কাঁচা আম বেশ উপকারি। ঘামাচির সমস্যা দূর করতে গরমের সময় ঘামাচির সমস্যা সমাধানে সবচেয়ে ভালো উপায় কাঁচা আম খাওয়া। কাঁচা আম সানস্ট্রোকও প্রতিরোধ করে। লিভারের সমস্যা প্রতিরোধে যকৃতের রোগ নিরাময়ে কাঁচা আম খুব উপকারি। কাঁচা আম শরীরে পটাসিয়ামের অভাব পূরণ করে লিভার ভালো রাখে। এটি বাইল এসিড নিঃসরণ বাড়ায় এবং অন্ত্রের ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণও প্রতিরোধ করে। অ্যানিমিয়া প্রতিরোধে কাঁচা আম রক্তস্বল্পতার সমস্যা দূর করে। এটি রক্তনালীসমূহের স্থিতিস্থাপকতা বৃদ্ধি করে এবং নতুন রক্ত কনিকা গঠনে সাহায্য করে। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে কাঁচা আম খেলে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে। আমে উচ্চ মাত্রায় প্রোটিন রয়েছে, যা জীবাণু থেকে দেহকে সুরক্ষা দেয়। কাঁচা আম স্কার্ভি প্রতিরোধ করে ও মাড়ির রক্ত পড়া কমায়। কাঁচা আম কিডনির সমস্যা প্রতিরোধেও সাহায্য করে এবং অ্যাসিডিটি নিয়ন্ত্রণ করে। ক্যান্সারের ঝুঁকি হ্রাসে কাঁচা আম রক্তে ক্ষতিকারক কোলেস্টেলের মাত্রা কমায় এবং ক্যান্সার কোষকে মেরে ফেলতে সাহায্য করে। এটি কোলন, প্রোস্টেট, ব্রেস্ট ক্যান্সারের ঝুঁকি কমিয়ে আমাদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা দেয়। যৌনশক্তি বাড়াতে কাঁচা আম যৌনশক্তি বাড়াতে সাহায্য করে এবং শরীর ফিট রাখে। কাঁচা আম খাওয়ার ফলে পুরুষের শুক্রাণুর গুণগত মান উন্নত হয় এবং সেক্স ক্রোমজোমের কর্মক্ষমতা বাড়ে। ত্বকের যত্নে কাঁচাআম কাঁচা আমক্লিনজার হিসেবে ত্বকের উপরিভাগে ব্যবহার করা হয়। এটি লোমকূপ পরিষ্কার করে এবং ব্রণ দূর করে। বার্ধক্যের ছাপ রোধে আমের রস বেশ কার্যকর। এটি চুল ও ত্বককে উজ্জ্বল রাখতে সাহায্য করে। অবসাদ দূর করতে গরমে স্বাভাবিকভাবে ঝিমুনি ভাব দেখা দেয়। দুপুরের খাওয়ার পরে কয়েক টুকরা কাঁচা আম খেলে এ ক্লান্তিভাব দূর হবে। নিশ্বাসের দুর্গন্ধ প্রতিরোধেও কাঁচা আম অনেক কার্যকর। দৃষ্টিশক্তি বৃদ্ধিতে কাঁচা আম রাতকানা রোগ প্রতিরোধ করে। চোখের চারপাশের শুষ্কভাবও দূর করে। শরীর গঠনে কাঁচা আমের উপকারিতা প্রতিদিন আম খেলে দেহের ক্ষয় রোধ হয় ও স্থূলতা কমে যায়। এটি শরীরে অক্সিজেনের সরবরাহ বাড়াতেও অনেক সহায়ক। শরীরে লবণের ঘাটতি দূর করে গরমে অতিরিক্ত ঘামে শরীর থেকে সোডিয়াম ক্লোরাইড ও লৌহ বের হয়ে যায়। কাঁচা আমের জুস শরীরের এই ঘাটতি দূর করবে।

পাকা আমের স্বাস্থ্যগুণ

উচ্চরক্তচাপের রোগীদের জন্য পাকা আম খুব উপকারি। চলুন, দেখে নিই পাকা আম কিভাবে আমাদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা দেয়- ক্যানসার প্রতিরোধ করে পাকা আমে বিদ্যমান উচ্চমাত্রায় পেকটিন আঁশ কিডনির ক্যানসার প্রতিরোধে সাহায্য করে। পাকা আম আমাদের শরীরের রক্ত পরিষ্কারেও সহায়তা করে। ওজন বাড়াতে সাহায্য করে ওজন বাড়াতে পাকা আম বেশ উপকারি। পাকা আমে থাকা বায়োটিক উপাদান যেমন স্টার্চ, এলডিহাইড ইত্যাদি ক্ষুধা বাড়াতে সাহায্য করে। নিয়মিত পাকা আমের জুস, মিল্কশেক, খেলে ওজন বাড়ে। ত্বকের যত্নে পাকা আম পাকা আম কোলাজেন প্রোটিন তৈরি করতে সহায়তা করে। মুখের ও নাকের উপর তৈরি হওয়া ব্ল্যাকহেড দূর করতেও পাকা আম দারুণ কার্যকর। নিয়মিত ১০০ গ্রাম পাকা আম খাওয়ার ফলে আপনার মুখের এ কালো দাগ দূর হয়ে যাবে ইনশা’আল্লাহ। পাকা আম ত্বকে মাস্ক হিসেবে ব্যবহার করলে লোমকূপে জমে থাকা ময়লা পরিষ্কার হয়। এটি ত্বক উজ্জ্বল, সুন্দর ও মসৃণ করে। অ্যাজমা প্রতিরোধে উচ্চ মাত্রায় বিটা ক্যারোটিন থাকার ফলে পাকা আম অ্যাজমা প্রতিরোধে সহায়ক। স্মৃতিশক্তি বাড়াতে পাকা আমে বিদ্যমান গ্লুটামিক অ্যাসিড মস্তিষ্কের কোষগুলোকে উজ্জীবিত করে মনোযোগ বাড়িয়ে দেয়। তাই পরীক্ষার সময় ও মস্তিষ্কের চাপ যখন বেশি থাকে, তখন আম খাওয়ার পরামর্শ দেন পুষ্টিবিদরা। রসালো ফল আম দেখতে যেমন সুন্দর খেতেও তেমন মিষ্টি। তাই এর প্রতি বরাবরই মানুষের আকর্ষণ বেশি। পরিমিত পরিমাণ আম খেলে শরীরে শর্করার মাত্রা ঠিক থাকে। আমের আঁটির উপকারিতা সাধারণত আমরা আম খেয়ে আঁটিকে অকেজো মনে করে ফেলে দেই। কিন্তু এই আঁটির উপকারিতা জানলে আপনাকে অবাক হতে হবে। আসুন জেনে নেই আমের আঁটির যত গুণ- চুলের যত্নে খুশকির সমস্যা সমাধানে আমের আঁটি খুব উপকারি। আমের আঁটি শুকিয়ে গুঁড়ো করে পানিতে মিশিয়ে তা স্ক্যাল্পে লাগান। এটি মাথার ত্বককে শুষ্ক রাখতে সাহায্য করবে। ফলে চুল ওঠার সমস্যাও দূর হয়ে যাবে। ওজন কমাতে অতিরিক্ত ওজনের সমস্যা থাকলে কাঁচা আমের আঁটি খেতে পারেন। ফ্যাট বার্ন প্রতিরোধে আমের আঁটি অত্যন্ত কার্যকর। ডায়রিয়ার প্রতিকারে ক্রনিক ডায়রিয়া সারাতে আমের আঁটি দারুণ উপকারি। আমের আঁটি শুকিয়ে নেয়ার পর গুঁড়া করে নিন। ১ বা দুই গ্রাম এই গুঁড়া পানি বা দইয়ের সঙ্গে মিশিয়ে খেতে পারেন। নিয়মিত সেবনে দ্রুত ফল পাবেন ইনশা’আল্লাহ। এছাড়া কাঁচা আমের আঁটি ক্ষতিকর কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতেও সাহায্য করে। ব্লাড সুগার লেভেল নিয়ন্ত্রণেও কাঁচা আমের আঁটি খেতে পারেন।  

আম পাতার ঔষধি গুণ

আম পাতায় মেঞ্জিফিরিন নামক সক্রিয় উপাদান থাকে যা অপরিমেয় স্বাস্থ্য উপকারিতায় ভরপুর। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে কচি আম পাতা রান্না করে খাওয়া হয়। আম পাতার স্বাস্থ্য উপকারিতাগুলো সম্পর্কে জেনে নিই- উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে আম পাতা হাইপারটেনশনের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত রক্তনালীকে শক্তিশালী করতে সাহায্য করে। প্রতিদিন ১ কাপ আম পাতার চা পান করলে উচ্চ রক্তচাপের সমস্যা লাঘব হবে। আম গাছের পাতা পরিষ্কার করে সারারাত পানিতে রাখুন। পরের দিন ঐ পানি ছেঁকে পান করুন। এতে ব্লাড সুগার লেভেল নিয়ন্ত্রণে থাকবে। শ্বসনতন্ত্রের সমস্যা নিরাময়ে নিয়মিত আম পাতার ফুটানো পানি পান করলে ঠান্ডা, ব্রংকাইটিস ইত্যাদি বিভিন্ন সমস্যা দূর হয়। ডায়াবেটিস প্রতিরোধে আমের গ্লাইসেমিক ইনডেক্স (৪১-৬০) কম। আম পাতায় ট্যানিন এবং অ্যান্থোসায়ানিন থাকে যা ডায়াবেটিস নিরাময়ে সাহায্য করে। ৫-৬টি আম পাতা ধুয়ে একটি পাত্রে সেদ্ধ করে ঐ পান করলে ইনসুলিনের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে থাকবে। কান ব্যথা উপশমে কানের ব্যথা নিরাময়ে আম পাতার রস খুব ভালো প্রাকৃতিক প্রতিষেধক। আম পাতায় হালকা তাপ দিয়ে কানের ছিদ্রের উপর লাগান। এতে ব্যথা কমে যাবে। কিডনির পাথর দূর করে আম পাতা শুকিয়ে গুঁড়ো করে নিন এবং পানির সাথে মিশিয়ে সকালে পান করুন। এর ফলে কিডনি পাথর খুব সহজেই শরীর থেকে বের হয়ে যাবে। গলা ব্যথা দূর করে গলার ব্যথা দূর করতে সাহায্য করে আম পাতা। কিছু আম পাতা পোড়ান এবং এর থেকে উৎপন্ন ধোঁয়া শ্বাসের সাথে গ্রহণ করুন। এতে আপনার গলা ব্যথার সমস্যা কমবে। গেঁটে বাত নিয়ন্ত্রণে অত্যন্ত কার্যকর আম পাতা। কিছু কচি আম পাতা পানিতে দিয়ে পাতার বর্ণ হলুদ হয়ে যাওয়া পর্যন্ত ফুটিয়ে নিন। নিয়মিত সেবনে ভালো ফল পাবেন। কিছু আম পাতা পানি মিশিয়ে ব্লেন্ড করে পেস্ট তৈরি করুন। আঁচিলের উপরে এটি প্রতিদিন লাগালে আঁচিল দূর হবে। আঘাত প্রাপ্ত স্থানে রক্ত পড়া বন্ধ করার জন্যও এই পেস্ট ব্যবহার করা যায়। আম পাতার ছাই দাঁত ব্যথা কমাতে সাহায্য করে।  

আয়ুর্বেদিক চিকিৎসায় আমের ব্যবহার

কচি আম পাতা ও জাম পাতার রস (২/৩ চা চামচ) একটু গরম করে খেলে আমাশয় সেরে যায়। আমের শুকনো মুকুল বেটে খেলে পাতলা পায়খানা, পুরনো এবং প্রস্রাবের জ্বালা-যন্ত্রণা উপশম হয়। কচি আমপাতা চিবিয়ে তা দিয়ে দাঁত মাজলে অকালে দাঁত পড়ার আশঙ্কা থাকে না। আমের কুশি থেঁতো করে পানিতে ভিজিয়ে ছেঁকে এই পানি শুষ্কচুলের গোড়ায় লাগালে চুল পরাকমে। তবে ঐ সময় মাথায় তেল ব্যবহার না করাই ভালো। জ্বর, বুকের ব্যথা, বহুমূত্র রোগের জন্য আমের পাতার চূর্ণ ব্যবহৃত হয়।  

আম খাওয়ার ক্ষতিকর দিক

অতিরিক্ত পরিমাণে কাঁচা আম খেলে ডায়রিয়া হওয়ার আশঙ্কা থাকে৷ কাঁচা আমের কষ মুখে লাগলে অথবা পেটে গেলে মুখ, গলা ও পেটে সংক্রমণ হতে পারে। আম অনেকের দেহে অ্যালার্জি সৃষ্টি করে। কাঁচা আম পাকাতে অনেক সময় ক্যালসিয়াম কার্বাইড নামক রাসায়নিক উপাদান ব্যবহার করা হয়, যা আমের খোসায় রয়ে যায়। অনেক সময় এটিও অ্যালার্জির কারণ হতে পারে। উচ্চ মাত্রায় চিনি থাকায়, পাকা আম রক্তে গ্লুকোজের মাত্রা বাড়িয়ে দেয়। এজন্য ডায়াবেটিস রোগীদের অতিরিক্ত পরিমাণে পাকা আম খাওয়া পরিহার করা উচিৎ। রসনার পরিতৃপ্তি, শরীরের পুষ্টি যোগান, এবং জাতীয় অর্থনীতিতে আমের অবদান অনস্বীকার্য। আম উৎপাদনকারী এলাকায় মৌমাছির আনাগোনা বেড়ে যায়। এ সময় বেশি মধু আহরণের দারুণ সুযোগ সৃষ্টি হয়। আমের উপকারিতার কারণে, গ্রীষ্ম প্রধান দেশে ফলের মধ্যে আম সবার সেরা। Source: https://www.bbcgoodfood.com/howto/guide/health-benefits-mango https://www.medicalnewstoday.com/articles/275921 https://pharmeasy.in/blog/health-benefits-of-mangoes/amp/
আপনার পছন্দের লেখাগুলো নিয়মিত পেতে ইমেইল দিয়ে এখনি সাবস্ক্রাইব করুন।
সর্বশেষ পোস্টগুলো
আমার ওজন কমানোর গল্প

আমার ৩৪ কেজি ওজন কামানোর কথা

home remedies for insomnia

অনিদ্রা দূর করার উপায় । ১০ টি ঘরোয়া ঔষধ

আঁচিলের প্রাকৃতিক চিকিৎসা

আঁচিলের প্রাকৃতিক চিকিৎসা

আমার ওজন কমানোর খাবার তালিকা

আমার ওজন কমানোর খাবার তালিকা বা ডায়েট চার্ট

অতিরিক্ত ওজন কমানোর ঔষধ

ওজন কমানোর প্রাকৃতিক ঔষধ

ওজন বাড়ানোর খাবার তালিকা

কফ কাশির প্রাকৃতিক ঔষধ

কফ বা কাশির প্রাকৃতিক চিকিৎসা

কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার উপায়

কোষ্টকাঠিন্য থেকে মুক্তির উপায়

গরম পানি খাওয়ার উপকারিতা

গরম পানি খাওয়ার ১০ টি উপকারিতা

খুশকি দূর করার উপায়

ঘরে বসে খুশকি দূর করার সহজ ১০টি উপায় । খুশকি দূর করার প্রাকৃতিক শ্যাম্পু

চুল পরা বন্ধের উপায়

চুল পড়া বন্ধের প্রাকৃতিক ঔষধ 

দ্রুত ওজন বাড়ানোর উপায়

দ্রুত ওজন বারানোর উপায়

বমি দূর করার উপায়

বমি দূর করার উপায় | বমি হলে করনীয়

ব্যায়াম ছাড়া ওজন কমানোর উপায়

ব্যায়াম ছাড়া ওজন কমানোর ৯ টি সহজ উপায়

দ্রুত ওজন কমানোর খাবার তালিকা

মাসে ১০ কেজি ওজন কমানোর ডায়েট চার্ট




Categories

গাজরের উপকারিতা ও অপকারিতা সম্পর্কে জেনে নিন

গাজরের উপকারিতা

গাজরের উপকারিতা সর্বজন-প্রশংসিত। এজন্য একে সুপার ফুড বলা হয়। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে গাজর সালাদ হিসাবে ব্যবহৃত হয়ে থাকে। পোলাও, খিচুড়ির সাথে মিশিয়েও গাজর রান্না করা যায়। এছাড়া গাজরের আচার, হালুয়াও দারুণ উপাদেয় খাবার।

 

গাজরের পুষ্টি উপাদান

গাজরে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন-এ, ভিটামিন-সি, ভিটামিন-কে, ভিটামিন-বি, প্যানটোথেনিক অ্যাসিড, ফোলেট, পটাসিয়াম, আয়রন এবং ফাইবার রয়েছে। প্রতি ১০০ গ্রাম গাজরে ৮২৮৫ মাইক্রোগ্রাম বিটাক্যারোটিন, ৪১ কিলোক্যালোরি খাদ্যশক্তি, ৩৩ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম, ১২ মিলিগ্রাম ফসফরাস এবং ১২ মিলিগ্রাম ম্যাগনেসিয়াম পাওয়া যায়।

 

গাজরের নানাবিধ ভেষজ গুণাগুণ

গাজর মূল জাতীয় সবজি। ওজন কমানোর জন্য এটি একটি আদর্শ খাবার।

চলুন, গাজর খাওয়ার কিছু উপকারিতা জেনে নিই-

ক্যান্সারের ঝুঁকি কমাতে

গাজরে Falcarinol এবং Falcarindiol রয়েছে, যা আমাদের শরীরের এন্ট্রিক্যান্সার উপাদানগুলোকে রিফিল করে। গাজর খেলে ফুসফুস ক্যান্সার, কলোরেক্টাল ক্যান্সার এবং প্রোস্টেট ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি কম থাকে। হজমের পর খাদ্যের কিছু উচ্ছিষ্ট আমাদের শরীরে থেকে যায়, যাকে ফ্রি র‍্যাডিকেলস বা মৌল বলে। এ ফ্রি র‍্যাডিকেলস শরীরের কিছু কোষ নষ্ট করে। গাজর এ ধরনের মৌলের প্রতিরোধে দারুণ কার্যকর।

দৃষ্টিশক্তি বৃদ্ধিতে

গাজর চোখের রেটিনাতে বেগুনি পিগ্মেট এর সংখ্যা বাড়িয়ে দিয়ে চোখের ফাংশন ঠিক রাখতে সাহায্য করে। রাতকানা রোগ দূরীকরণে গাজর বেশ উপকারি।

লিভারের সমস্যা সমাধানে

গাজরে প্রচুর পরিমাণে দ্রবণীয় ফাইবার পাওয়া যায় যা মলত্যাগের উদ্দীপনা সৃষ্টি করে লিভার ও কোলনকে পরিষ্কার করতে সাহায্য করে। প্রতিদিন একটি করে গাজর সেবন করলে লিভারে প্রদাহ, ফোলা ভাব ও সংক্রমণ কমে যায়। এটি হেপাটাইটিস, সিরোসিস এবং কোলেস্টেসিসের মতো সমস্যা থেকে লিভারকে রক্ষা করে। গাজর লিভারের পিত্ত এবং হিমায়িত ফ্যাট কমাতেও সাহায্য করে। এটা  দেহের অতিরিক্ত ওজন কমানোর জন্য  কার্যকরী ভূমিকা পালন করে।
 



 
অ্যান্টিএজিং হিসেবে

গাজর আমাদের শরীরের অ্যান্টি এজিং উপাদান হিসেবেও কাজ করে। মেটাবলিজমের কারণে শরীরে ক্ষয়প্রাপ্ত সেলগুলিকে ঠিকঠাক করতে গাজর খুব কার্যকর।

সুন্দর ত্বকের জন্য গাজর

গাজর ত্বকের রোদে পোড়া ভাব দূর করতে সাহায্য করে। নিয়মিত গাজরের জুস খেলে মুখের দাগ, বয়সের ছাপ দূর হয়ে যায়। এছাড়া গাজরে বিদ্যমান অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল এজেন্টস্ ত্বক শুকিয়ে যাওয়া প্রতিরোধ করে, ত্বককে করে তোলে সুস্থ এবং সতেজ।

অ্যান্টিসেপটিক হিসেবে কাজ করে

কোথাও কেটে বা পুড়ে গেলে সেখানে লাগিয়ে নিন কুচি করা গাজর বা সিদ্ধ করা গাজরের পেস্ট। এতে ইনফেকশনের আশঙ্কা দূর হয়ে যাবে।

ওরাল স্বাস্থ্যসুরক্ষায় গাজর

গাজর মুখের লালা উৎপাদন বাড়ায়। গাজর খাওয়ার সময় আমাদের মুখে ‘সিলভা’ নামক একটি যৌগের নিঃসরণ ঘটে। সিলভা মুখে অ্যাসিডের ভারসাম্য বজায় রাখে এবং দাঁতের ক্ষয়ের জন্য দায়ী ব্যাকটেরিয়া ধ্বংস করে। নিয়মিত গাজর খেলে দাঁতের মাড়ি শক্ত হয়।

কানের ব্যথার প্রতিকারে

সর্দি-কাশি বা কোনো অসুস্থতার পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়ার কারণে অনেকসময় কানে ব্যথা হয়। কলা, গাজর, আদা এবং রসুন একসাথে পানিতে সেদ্ধ করে ১-২ ফোঁটা কানে ব্যবহার করলে ব্যথা কমে যাবে ইনশা’আল্লাহ ।

অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট হিসেবে

গাজরের জুস শরীরে ক্ষতিকর জীবাণু, ভাইরাস এবং বিভিন্ন ধরনের প্রদাহের বিরুদ্ধে ভালো কাজ করে। গাজর রক্তও পরিষ্কার করে থাকে। গাজরের স্যুপ ডায়রিয়া নিরাময়ে ভারি উপকারি। কৃমিনাশক হিসেবে গাজর ভালো প্রতিষেধক। উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে গাজরের সঙ্গে কয়েক কোয়া রসুন মিশিয়ে খান।

হার্টের সুরক্ষায় গাজরের উপকারিতা

গাজর ডায়েটরি ফাইবারে পরিপূর্ণ থাকে। এই উপাদানগুলো ধমনির ওপর কোনো কিছুর আস্তরণ জমতে না দিয়ে রক্ত চলাচল স্বাভাবিক রাখে, হার্টকে সুস্থ রাখে। গাজরের আলফা ক্যারোটিন ও লুটিন নামক উপাদান হৃদরোগের ঝুঁকি কমিয়ে দেয়।

কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে

কোলেস্টেরল এবং ব্লাড সুগার নিয়ন্ত্রণে গাজর দারুণ উপকারি। গাজরের রস দেহে চর্বির মাত্রা কমায়। সে সঙ্গে গাজরে বিদ্যমান ফাইবার কোলন পরিষ্কার রাখে এবং কোষ্ঠকাঠিন্যের হাত থেকে রক্ষা করে। গাজর রক্তের প্রধান উপাদান আরবিসিকে দীর্ঘজীবী করে। ফলে রক্তে হিমোগ্লোবিনের মাত্রা বাড়ে। সাথে সাথে গাজর ত্বকে উপকারি কোলেস্টেরলের বা লাইপোপ্রোটিনের মাত্রা বাড়িয়ে দেয়। গাজরের পুষ্টিগুণ ক্ষতিকর কোলেস্টেরল বের করে দেয় যা এথারোস্কেলোরোসিস এবং স্ট্রোক এর ঝুঁকি হ্রাস করে।

মস্তিষ্কের সুরক্ষায়

গাজরের হালুয়া শিশুদের বুদ্ধি বিকাশে সাহায্য করে। এবং গাজরের জুস নার্ভাস সিস্টেমকে উন্নত করে ও মস্তিষ্কের ক্ষমতা বৃদ্ধিতে সহায়তা করে।

শ্বাসতন্ত্রের সমস্যা সমাধানে

ফুসফুসের কার্যকারিতা বৃদ্ধি করতে এবং শ্বাসতন্ত্রের বিভিন্ন সমস্যা(যেমন- অ্যাজমা, ব্রংকাইটিস এবং এমফিসেমা ইত্যাদি) প্রতিরোধে গাজর খুব উপকারি।

 

আরো পড়ুনঃ ফুসফুসে ইনফেকশন হলে কি করবেন

 



ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে

গাজর রক্তে গ্লুকোজের পরিমাণ কমিয়ে দেয় এবং ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখতেও সাহায্য করে। তবে কিডনি রোগে আক্রান্ত ও ডায়াবেটিসের রোগীরা মিষ্টি গাজর খাওয়ার পরিমাণ কমিয়ে দিন।

শক্তি বৃদ্ধিতে

গাজরে দেহের শক্তি ও বিকাশের জন্য আবশ্যকীয় প্রোটিন, শক্তিদায়ক উপাদান চর্বি-ও কার্বো-হাইড্রেট রয়েছে। গাজরের রস সব ধরনের জ্বর, দুর্বলতা, নাড়ি সম্পর্কিত বিকার ইত্যাদির প্রতিকারে কার্যকর ভেষজ ঔষধ।

যেকোনো বড় অস্ত্রোপচারের পর রক্তের ঘাটতি হয়। এই ঘাটতি পূরণে গাজর খুব উপকারি। গাজরে প্রচুর পরিমাণে খনিজ লবণ রয়েছে, যা মানুষের হাড়, দাঁত, নখ সুগঠিত করে।

গর্ভাবস্থায় গাজর খাওয়ার উপকারিতা

নিয়মিত গাজর খেলে গর্ভাবস্থায় আপনার কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা সহজে কাটিয়ে উঠতে পারবেন। অনেক গর্ভবতী মহিলাই তাদের গর্ভাবস্থায় শিরায় টান লাগা বা পেশী শক্ত হয়ে যাওয়া অনুভব করে থাকতে পারেন। গাজর এসব নানাবিধ সমস্যার ভালো প্রতিষেধক। গাজর অ্যানিমিয়া বা রক্তাল্পতা প্রতিরোধেও সহায়তা করে।

গাজরে প্রচুর পরিমাণে ম্যাঙ্গানিজ রয়েছে, যা আপনার অনাগত শিশুর হাড় এবং তরুণাস্থির গঠনে অত্যন্ত প্রয়োজনীয় খনিজ। এতে বিদ্যমান ফোলিক অ্যাসিড গর্ভের সন্তানের স্নায়ুতন্ত্রের বিকাশেও সাহায্য করে।

 

গাজরের অপকারিতা

  • প্রচুর পরিমাণে গাজর গ্রহণের ফলে ত্বকের রং হলুদ হয়ে যায় এবং অল্প বয়সের শিশুদের দাঁতের ক্ষয় হতে পারে।
  • গরমে বেশি গাজর খাওয়া এড়িয়ে চলুন, কারণ এতে উচ্চ রক্তচাপ এবং অনিদ্রা দেখা দিতে পারে।
  • অন্ত্রে অতিরিক্ত বিটা ক্যারোটিনের উপস্থিতি ক্যান্সারের কারণ হতে পারে।
  • বেশি পরিমাণে গাজর খেলে আপনার গ্যাস, ডায়রিয়া, পেট, পাকস্থলির পাচনজনিত ব্যাধি দেখা দিতে পারে।
  • অতিরিক্ত গাজরের রস খাওয়ার ফলে মহিলাদের বুকের দুধের স্বাদ পরিবর্তিত হয়।
  • গাজরের উপকারিতা যেমন অনেক তেমনি এটি বছরের সবসময়ই পাওয়া যায়। এটি যথাসম্ভব কাঁচা খাওয়ার চেষ্টা করুন, এতে পরিপূর্ণ ভিটামিন এবং মিনারেলস্ পাবেন। রেফ্রিজারেটরে গাজর সংরক্ষণের সময় অবশ্যই প্লাস্টিকের নরম ব্যাগ ব্যবহার করুন।

Source:

https://www.medicalnewstoday.com/articles/270191
https://food.ndtv.com/food-drinks/8-amazing-health-benefits-of-carrots-from-weight-loss-to-healthy-eyesight-1767963?amp=1&akamai-rum=off

আপনার পছন্দের লেখাগুলো নিয়মিত পেতে ইমেইল দিয়ে এখনি সাবস্ক্রাইব করুন।
সর্বশেষ পোস্টগুলো
আমার ওজন কমানোর গল্প

আমার ৩৪ কেজি ওজন কামানোর কথা

home remedies for insomnia

অনিদ্রা দূর করার উপায় । ১০ টি ঘরোয়া ঔষধ

আঁচিলের প্রাকৃতিক চিকিৎসা

আঁচিলের প্রাকৃতিক চিকিৎসা

আমার ওজন কমানোর খাবার তালিকা

আমার ওজন কমানোর খাবার তালিকা বা ডায়েট চার্ট

অতিরিক্ত ওজন কমানোর ঔষধ

ওজন কমানোর প্রাকৃতিক ঔষধ

ওজন বাড়ানোর খাবার তালিকা

কফ কাশির প্রাকৃতিক ঔষধ

কফ বা কাশির প্রাকৃতিক চিকিৎসা

কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার উপায়

কোষ্টকাঠিন্য থেকে মুক্তির উপায়

গরম পানি খাওয়ার উপকারিতা

গরম পানি খাওয়ার ১০ টি উপকারিতা

খুশকি দূর করার উপায়

ঘরে বসে খুশকি দূর করার সহজ ১০টি উপায় । খুশকি দূর করার প্রাকৃতিক শ্যাম্পু

চুল পরা বন্ধের উপায়

চুল পড়া বন্ধের প্রাকৃতিক ঔষধ 

দ্রুত ওজন বাড়ানোর উপায়

দ্রুত ওজন বারানোর উপায়

বমি দূর করার উপায়

বমি দূর করার উপায় | বমি হলে করনীয়

ব্যায়াম ছাড়া ওজন কমানোর উপায়

ব্যায়াম ছাড়া ওজন কমানোর ৯ টি সহজ উপায়

দ্রুত ওজন কমানোর খাবার তালিকা

মাসে ১০ কেজি ওজন কমানোর ডায়েট চার্ট




Categories

কলার উপকারিতা | কলা খেলে কি হয়

কলার উপকারিতা

কলা শরীরের পুষ্টি চাহিদা পূরণের পাশাপাশি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতেও বেশ সহায়ক। এজন্য আমাদের প্রায় প্রতিদিনকার প্রাতরাশে এটি খুব সহজেই জায়গা করে নিয়েছে। কলা আপনার তাৎক্ষণিক শক্তির সঞ্চারিকা হিসাবেও কাজ করবে। স্থায়ীভাবে সকল প্রকার ক্লান্তি ও অবসাদ থেকে মুক্তি দিতে কলার জুড়ি নেই।

 

কলার পুষ্টি উপাদান

প্রতি ১০০ গ্রাম কলায় ১১৬ ক্যালোরি শক্তি, ৮৫ মি.গ্রা. ক্যালসিয়াম, ০.৬মি.গ্রা. আয়রন থাকে। এছাড়াও কলাতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি, ফসফরাস, প্রোটিন, খনিজ লবণ রয়েছে। কলা পটাশিয়ামের এক অনন্য উৎস। তাছাড়া শারীরিক ও মানসিক কর্মক্ষমতা বৃদ্ধিতে প্রতিদিনের প্রয়োজনীয় ভিটামিন বি৬ কলা থেকে পাওয়া যায়।

কলা খাওয়ার উপকারিতা

কলা বহুগুণে সমৃদ্ধ। তাই, শরীর সুস্থ রাখতে প্রতিদিন ছোট-বড় সকলেরই একটি করে কলা খাওয়া উচিৎ।

আসুন জেনে নেওয়া যাক কলা খাওয়ার কিছু উপকারিতা

 

মানসিক অবসাদ কমায়

কলায় বিদ্যমান ট্রাইপটোফিন নামক রাসায়নিক উপাদানের প্রভাবে দেহে ফিল-গুড হরমোন নিঃসৃত হয়। কলা রক্তে শর্করার মাত্রা ঠিক রেখে স্নায়বিক চাপ কমাতে সাহায্য করে। শরীরের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণেও কলা খুব উপকারি। প্রি-মেন্সট্রয়াল সিনড্রোম প্রতিরোধে কলা ফ্যাটি ফুডের মতোই কার্যকর।

 

শরীরকে ডিটক্সিফাই করে

কলায় বিদ্যমান প্রেকটিন শরীরের ক্ষতিকর পদার্থগুলোকে মূত্রের মাধ্যমে বের করে দেয়। এমনকি শরীর থেকে নিকোটিনের প্রভাব দূর করতেও বেশ সহায়ক। এছাড়া কলা শরীর থেকে চর্বি এবং অন্যান্য অপ্রয়োজনীয় উপাদান শোষণ করে এবং অন্ত্রের ব্যাকটেরিয়াগুলোকে ধ্বংস করে।


অ্যানিমিয়া প্রতিরোধ করে

কলায় প্রচুর পরিমাণে আয়রন রয়েছে, যা শরীরে লোহিত রক্তকণিকার পরিমাণ বৃদ্ধি করে এবং অ্যানিমিয়ার প্রকোপ কমায়। কলা রক্তকে পরিশুদ্ধ করতেও অনেক কার্যকর।

 

ব্লাড প্রেসার নিয়ন্ত্রণ করে

কলা শরীরে লবণের ভারসাম্য বজায় রাখে। ফলে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে থাকে। প্রতিদিন একটি বা দুটি কলা খেলে আপনার হৃদযন্ত্র সচল থাকবে এবং হার্ট অ্যাটাক ও স্ট্রোকের ঝুঁকি কমবে।

 

কিডনি সুস্থ রাখে

কলা ইউরিনে ক্যালসিয়াম জমা হতে বাধা দেয় বলে কিডনিতে পাথর হওয়ার আশঙ্কা কমে যায়।

 

শরীরে শক্তির যোগান দেয়

কলাতে প্রচুর পরিমাণে প্রাকৃতিক শর্করা ও সল্যুবল ফাইবার রয়েছে , যা শরীরে শক্তির যোগান দেয়। এছাড়া কলা শরীরের জন্য প্রয়োজনীয় অ্যামিনো অ্যাসিড উৎপাদন করে।

 

হজমে সহায়তা করে

কলা অ্যান্টাসিডের মত কাজ করে। কলার ফাইবার ও প্রোবায়োটিক অলিগোস্যাকারাইজড হজমের জন্য দারুণ উপকারি। এর ফলে আপনার শরীরে অধিক পরিমাণে পুষ্টি সঞ্চয় হয়। কলা পাকস্থলীতে ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া প্রতিরোধেও সহায়তা করে।

অ্যাসিডিক বৈশিষ্ট্য বিদ্যমান থাকায় শুকনো কিছু খাবারের সঙ্গে কলা মিলিয়ে খাওয়া ভালো। তা না হলে শরীরে উচ্চ মাত্রার ম্যাগনেশিয়ামের ভারসাম্যহীনতা দেখা দেয়।

 

পাকস্থলির আলসার প্রতিরোধ করে

কলা প্রোটেক্টিভ মিউকাস লেয়ার বৃদ্ধির মাধ্যমে পাকস্থলিতে পিএইচ লেভেল ঠিক রাখে, যা আপনাকে বুক-জ্বালা ও পাকস্থলীর আলসার থেকে রক্ষা করবে। কলা অভ্যন্তরীণ অ্যাসিড নিঃসরণে বাধা দেয়।

 

ত্বকের যত্নে কলা

কলা ত্বকের হারানো আর্দ্রতা পুনরুদ্ধার করে ত্বককে সতেজ করে তুলতে, শুষ্কতা নিরাময় করতে সহায়তা করে।

ব্যবহারবিধি:

১) অর্ধেক পাকা কলা নিয়ে তার মধ্যে এক টেবিল চামচ চন্দন কাঠের গুঁড়ো এবং ১ চা-চামচ মধু মিশিয়ে নিন। অথবা একটা পাকা কলা কেটে এর মধ্যে একটি লেবুর রস মিশিয়ে নিন।

২) এরপর এটি মুখে লাগিয়ে ২০-২৫ মিনিট অপেক্ষা করুন।

৩) তারপর হালকা গরম জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এই মাস্কটি তৈলাক্ত ত্বকের জন্য অন্যতম একটি উপকারি ফেসপ্যাক।

এটি ত্বক থেকে অতিরিক্ত সেবাম নিঃসরণ দূর করে ত্বককে উজ্জ্বল করে তুলতে সহায়তা করবে।


শরীরে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট বৃদ্ধি করে

কলা ডোপামিন, ক্যাটেচিন্স এর মতো কিছু গুরুত্বপূর্ণ অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট সরবরাহ করে থাকে। পাকা কলা শরীরের TNF-A নামক এক ধরণের যৌগ সরবরাহ করে, যা শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধির পাশাপাশি শ্বেত রক্তকণিকার পরিমাণ বাড়ায়। এতে করে ব্লাড ক্যান্সারের ঝুঁকি অনেকটা কমে যায়। কলায় বিদ্যমান ফোলেট ও লেক্টিন নামক রাসায়নিক উপাদান শরীরের কোষগুলোকে ভাইরাস আক্রমণ থেকে শরীরকে রক্ষা করে।

 

মস্তিষ্কের স্বাস্থ্য রক্ষায় কলার ব্যবহার

নিয়মিত কলা খেলে মস্তিষ্কের কার্যকারিতা বৃদ্ধি পায়। এটি কোষে অক্সিজেনের মাত্রা স্বাভাবিক রাখে এবং নিউরন গুলোকে সুগঠিত রাখতে সহায়তা করে। এছাড়াও মৃগী এবং পারকিনসন রোগের সমস্যায় সমাধানে কলা দারুণ কার্যকর। কলা খাওয়ার ফলে মেনোপজাল পরবর্তী মহিলাদের স্ট্রোকের ঝুঁকি অনেকাংশে কমে যায়।

 

হাড় গঠনে কলার উপকারিতা

কলা হাড়ের সুরক্ষায় সহায়তা করে। নিয়মিত কলা খাওয়ার ফলে অস্টিওপোরোসিস এর সমস্যা কম হয়।

 

ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে কলার ভূমিকা

কলার মধ্যে থাকা ভিটামিন বি সিক্স ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করে। প্রতিদিন কলা খাওয়ার ফলে টাইপ টু ডায়াবেটিস রোগীদের রক্তে গ্লুকোজের মাত্রা বৃদ্ধি পায় এবং শরীরে ফ্রুক্টোজ এর পরিমাণ স্বাভাবিক থাকে।

 

চোখের স্বাস্থ্য রক্ষায় কলা

কলায় বিদ্যমান ভিটামিন-এ চোখ এবং কর্নিয়ায় সুরক্ষা প্রদান করে থাকে; যাতে ব্যাকটেরিয়া দ্বারা চোখ সংক্রমিত হতে না পারে।

 

মাসিকের যন্ত্রণা কমাতে কলার উপকারিতা

কলায় থাকা খনিজ উপাদান পিরিয়ডের সময় জরায়ুর পেশীগুলোকে শক্তি প্রদান করে এবং ব্যথা কমাতে সহায়তা করে।

 

মর্নিং সিকনেস সমস্যায় কলা

গর্ভাবস্থার প্রথম দিকে সকাল বেলা বমি ভাব কিংবা বমি হতে দেখা যায়। কলা মর্নিং সিকনেস সমস্যা কমাতে সহায়তা করে।

 

ওজন কমাতে

শরীরের অতিরিক্ত ওজন কমানোর জন্য প্রতিদিন সকালে খালি পেটে একটি করে কলা খান। সবুজ কলাতে প্রচুর পরিমাণে স্টার্চ রয়েছে। এটি শরীরে ফাইবার এর মত কাজ করে রক্তে শর্করার মাত্রা কে নিয়ন্ত্রণ করে।

 

অনিদ্রা কাটাতে কলার ব্যবহার

কলাতে বিদ্যমান ট্রিপটোফ্যান ও মেলাটোনিন ঘুমের ওষুধ তৈরিতে ব্যবহৃত হয়। রোজ খাদ্যতালিকায় একটি করে কলা রাখুন, অনিদ্রার সমস্যা দূর হয়ে যাবে ইনশা’আল্লাহ।

 

পায়ের যত্নে কলার ব্যবহার

দীর্ঘ সময় ধরে খালিপায়ে হাঁটা-চলা করলে গোড়ালির সমস্যা দেখা যেতে পারে। ফাটা গোড়ালির সমস্যা সমাধানে কলা খুব উপকারি।

ব্যবহার: দুটি পাকা কলা ব্লেন্ড করে পানিতে মিশিয়ে পরিষ্কার পায়ে লাগিয়ে রাখুন। ১০ মিনিট পর ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এটি পায়ের ত্বককে মসৃণ করে তুলবে।

 

চুলের যত্নে কলা

চুলকে স্বাস্থ্যোজ্জ্বল করে তুলতে এবং চুলের বৃদ্ধিতে কলা বেশ সহায়ক ভেষজ মেডিসিন। এটা চুল পড়া বন্ধের প্রাকৃতিক ঔষধ হিসেবেও কার্যকর।

খুশকির সমস্যা দূর করতে চুলে কলা, টক দই আর লেবুর রসের তৈরি একটি মিশ্রণ ব্যবহার করতে পারেন।

ব্যবহার: অর্ধেক পাকা কলার সঙ্গে তিন চামচ টক দই ও এক চামচ লেবুর রস ভালোভাবে মিশিয়ে নিন। এটি শুধু চুলের গোড়া ও মাথার তালুর ত্বকে লাগাবেন। খেয়াল রাখতে হবে, এই মিশ্রণটি যাতে মাথার বাকি চুলে না লাগে। ২০-২৫ মিনিট পর চুল ভাল ভাবে শ্যাম্পু করে ধুয়ে ফেলুন। এতে চুল হয়ে উঠবে ঝলমলে এবং আরো উজ্জ্বল।

 

কাঁচা কলার উপকারিতা

কাঁচা কলায় আছে অত্যাবশ্যকীয় খনিজ ও পুষ্টি উপাদান যা চর্বিকে শক্তিকে রূপান্তরিত করে এবং এনজাইম ভাঙতে সহায়তা করে। কাঁচা কলা শরীরের ইলেক্ট্রোলাইটের ভারসাম্য বজায় রেখে কিডনি বা বৃক্কের কাজকে ত্বরান্বিত করে । প্রতিদিন কাঁচা কলা খেলে ‘কিডনি ক্যান্সার’- এর ঝুঁকি দূর হয়ে যায়।

কাঁচা কলার খোসা সেদ্ধ করে ভর্তা করে বা সবজির মতো রান্না করেও খেতে পারেন। ডায়রিয়ার সময় কাঁচা কলা খেলে শরীরের পটাশিয়ামের অভাব দূর হয়।

তবে বেশি পরিমাণে কাঁচা কলা খাওয়ার ফলে কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা দেখা দিতে পারে।

কলার থোড়ের স্বাস্থ্যগুণ

কলার থোড় পেট পরিষ্কার রাখতে সাহায্য করে।
এসিডিটির সমস্যায় ভুগলে কলার থোড় ব্লেন্ড করে শরবত বানিয়ে খেতে পারেন। নিয়মিত থোড়ের রসে এলাচ গুঁড়ো মিশিয়ে খেতে পারলে গলব্লাডার পরিষ্কার থাকে। শিশুর ইউরিনের কোনো সমস্যা থাকলে থোড়ের রসে কয়েক ফোঁটা লেবুর রস মিশিয়ে খাওয়ান।


কলার খোসার উপকারিতা

কলার খোসাতেও রয়েছে অনেক পুষ্টিগুণ। কলার খোসাকে আপনি ব্যক্তিগত অনেক কাজে ব্যবহার করতে পারেন। তবে রাসায়নিকমুক্ত কলা হলে তা ভালো কাজে দেবে।

চলুন তবে জেনে নেয়া যাক, এর গুণাগুণ সম্পর্কে-

জুতা পলিশ

জুতা চকচকে রাখতে কলার খোসা ব্যবহার করা হয়। খোসার ভিতরের নরম অংশ জুতার উপর কিছুক্ষণ ঘষুন। তারপর একটি নরম কাপড় দিয়ে জুতা মুছে ফেলুন।

রূপার উজ্জ্বলতা ধরে রাখতে

কলার খোসা ব্লেন্ড করে পানির সাথে মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। এ পেস্টটি রুপার পাতের উপর ঘষুন। এরপর পানি দিয়ে ধুয়ে একটি শুকনো পরিষ্কার কাপড় দিয়ে মুছে ফেলুন।

দাঁত সাদা করতে

হলদেটে দাঁত নিয়ে বিড়ম্বনার শেষ নেই। কলার খোসার নরম অংশটি দিয়ে দাঁতের উপর কিছুক্ষণ ঘষুন। নিয়মিত ব্যবহারে দাঁতের হলদে ভাব দূর হয়ে যাবে।

ব্যথা প্রশমিত করতে

শরীরের যেকোনো প্রদাহে সরাসরি কলার খোসা লাগিয়ে রাখুন। ৩০ মিনিট পর খোসাটি সরিয়ে ফেলুন। দেখবেন ব্যথা অনেকটা কমে গেছে। এছাড়া ভেজিটেবল অয়েল এবং কলার খোসা একসাথে ব্যবহার করতে পারেন।

ব্রণ প্রতিরোধে

ব্রণের উপর কলার খোসার একটি ছোট টুকরো কেটে নিয়ে নরম অংশটি ম্যাসাজ করুন। তারপর ৫ মিনিটের জন্য তা রেখে দিন। এটি শুকিয়ে গেলে হালকা গরম জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

ত্বকের আর্দ্রতা ধরে রাখতে ডিমের সাদা অংশ এবং কলা খোসার ভিতরের অংশ একসাথে মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। এ মিশ্রণটি ত্বকে ৫ মিনিট ধরে ব্যবহার করুন ৫ মিনিট। তারপর পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন।

কালো দাগ দূর করতে

ব্যথায় কালো হয়ে যাওয়া দাগ দূর করতে কলার খোসা বেশ কার্যকর। দাগের স্থানে কলার খোসা কিছুক্ষণ ঘষুন অথবা ঐ স্থানে কলার খোসা দিয়ে পেঁচিয়ে রাখুন।

দাদের ওষুধ

কলার খোসা দাদের ওষুধ হিসেবেও কাজ করে। চুলকালে সেই অংশে কলার খোসা ঘষে দিলে চুলকানি বন্ধ হবে। কোথাও পাঁচড়া-জাতীয় কিছু হলে সেই জায়গায় কলার খোসা মেখে রাখুন, অথবা কলার খোসা পানিতে মধ্যে সেদ্ধ করে সেই পানি দিয়ে সংক্রমিত জায়গা কয়েক দিন ধুয়ে ফেলুন।

মশা কিংবা পোকামাকড়ের সংক্রমণ প্রতিরোধে

মশার কামড়ে ফুলে, লাল হয়ে ওঠা ত্বকের যত্নে কলার খোসা ব্যবহার করুন। তবে আক্রান্ত স্থানটিতে কলার খোসা ব্যবহার করার আগে অবশ্যই একবার ডেটল দিয়ে মুছে নেবেন। তাতে ব্যাকটেরিয়া সম্পূর্ণরূপে নির্মূল হয়ে যাবে।

সোরিয়াসিস রোগে

সোরিয়াসিসের মতো মারাত্মক রোগের জন্যও কলা বেশ কার্যকর প্রতিষেধক। ত্বকে এটি ব্যবহার করার ১০ মিনিটের মধ্যে সোরিয়াসিসের লক্ষণগুলো চলে যাবে।

 

গর্ভাবস্থায় কলা খাওয়ার উপকারিতা

কলার পুষ্টিগুণ গর্ভাবস্থায় ভ্রূণের সুস্থ বিকাশে সহায়তা করে। বিভিন্ন ঔষধের পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া থেকে মুক্তি দিতে এবং মা ও শিশু উভয়ের স্বাস্থ্যের জন্যও কলা খুব উপকারি।

চলুন দেখে নিই, এসময় কলা খাওয়ার কিছু উপকারিতা-

  • কলা গর্ভাবস্থায় বমি বমিভাব থেকে মুক্তি দেয়।
  • এডিমার কারণে গর্ভবতী মহিলার গোড়ালি, পা এবং অন্যান্য জয়েন্টগুলিতে ফোলাভাব হতে পারে। আপনার ডায়েটে কলা অন্তর্ভুক্ত করুন; এ ফোলাভাব কমে যাবে।
  • গর্ভাবস্থার শেষ ত্রৈমাসিকে শক্তি স্তরে ভারসাম্য থাকা জরুরি। কলা আপনাকে তাৎক্ষণিক শক্তি বৃদ্ধিতে সাহায্য করবে।
  • গর্ভাবস্থায় কলা খাওয়ার ফলে শরীরে ফোলেটের মাত্রা উন্নত হয় এবং শিশুর জন্মগত ত্রুটি হ্রাস পায়। এসময় নিয়মিত কলা খাওয়া শিশুর মস্তিষ্কের বিকাশের জন্য জরুরি।
  • কলাতে প্রচুর পরিমাণে ডায়েটরি ফাইবার থাকে যা গ্যাসের ফলে পেটে ফোলাভাব হওয়া কমাতে সাহায্য করে।
  • কলা ক্যালসিয়ামের একটি দুর্দান্ত উৎস, যা শিশু এবং মা উভয়েরই হাড়ের বিকাশের জন্য অত্যাবশ্যক। শরীরে পেশী সংকোচন নিয়ন্ত্রণের জন্যও ক্যালসিয়াম প্রয়োজন।
  • কলা ক্ষুধার উদ্দীপক হিসাবে কাজ করে। গর্ভবতী মহিলারা যাদের ক্ষুধা হ্রাস হয়ে যায়, তাদের নিয়মিত কলা খাওয়া উচিৎ।

সতর্কতা:

কলাতে চিটিনেজ নামক অ্যালার্জেন থাকে, যা ল্যাটেক্স-ফ্রুট সিনড্রোমের কারণ হয়। গর্ভাবস্থায় ডায়াবেটিসে আক্রান্ত মহিলাদেরও খুব বেশি কলা খাওয়া উচিৎ নয়, কারণ এতে চিনির মাত্রা দ্রুত বাড়তে পারে।

 

কলার অপকারিতা

১) কলার মধ্যে অতিমাত্রায় পটাশিয়াম বিদ্যমান। অত্যাধিক পরিমাণে পটাশিয়ামের উপস্থিতির কারণে হৃদপিণ্ড অকার্যকর হয়ে পড়ে। তাই অতিরিক্ত কলা খাওয়া এড়িয়ে চলুন।

২) কলা গাছের পাতা, কান্ড সবকিছুই খাদ্য হিসেবে ব্যবহার হয়। কিন্তু এলার্জির আশঙ্কা থাকলে দেখে নেবেন কলা গাছের কোন বিশেষ অংশ আপনার খাওয়া উচিৎ নয়।

৩) কলার মধ্যে উচ্চমাত্রায় অ্যামিনো এসিড থাকায়, অধিকমাত্রায় কলা খাওয়ার ফলে রক্তনালীতে প্রভাব পড়তে পারে। যার ফলে মাথাব্যথার সৃষ্টি হয়।

৪) অতিরিক্ত কলা খাওয়ার ফলে হাইপারক্যালেমিয়া রোগ দেখা দিতে পারে। যার ফলে পেশির দুর্বলতা কিংবা অনিয়মিত হৃদস্পন্দনের সমস্যা হতে পারে।

৫) যদি কারো কিডনির সমস্যা থাকে সেক্ষেত্রে তাদের কলা খাওয়ার পরিমাণ কমিয়ে দেওয়া উচিৎ।

প্রাণবন্ত থাকতে কে না চায়? কিন্তু সবসময় সেটা সম্ভব হয়ে ওঠে না। বহুমুখী কাজের চাপ যেনো দিন দিন বেড়েই চলেছে। সময়ের সাথে দৌড়াতে দৌড়াতে-ই দিনের শেষ। এই নিরন্তর ব্যস্ততার মাঝেও চটপটে থাকতে চাই শরীরে সঠিক মাত্রার পুষ্টিগুণ। একদম ছোট শিশু থেকে শুরু করে, কিশোর-তরুণ, প্রাপ্তবয়স্ক এমনকি বৃদ্ধদেরও নিয়মিতভাবে ফল খাওয়া উচিৎ। কলা তেমনই একটি ফল যা খেতে সুস্বাদু এবং অবাক করা সব ভেষজগুণে টইটম্বুর।

Source:

https://www.healthline.com/nutrition/11-proven-benefits-of-bananas
https://www.medicalnewstoday.com/articles/271157
https://www.bbcgoodfood.com/howto/guide/health-benefits-bananas
https://www.everydayhealth.com/diet-nutrition/11-banana-health-benefits-you-might-not-know-about/

আপনার পছন্দের লেখাগুলো নিয়মিত পেতে ইমেইল দিয়ে এখনি সাবস্ক্রাইব করুন।
সর্বশেষ পোস্টগুলো
আমার ওজন কমানোর গল্প

আমার ৩৪ কেজি ওজন কামানোর কথা

home remedies for insomnia

অনিদ্রা দূর করার উপায় । ১০ টি ঘরোয়া ঔষধ

আঁচিলের প্রাকৃতিক চিকিৎসা

আঁচিলের প্রাকৃতিক চিকিৎসা

আমার ওজন কমানোর খাবার তালিকা

আমার ওজন কমানোর খাবার তালিকা বা ডায়েট চার্ট

অতিরিক্ত ওজন কমানোর ঔষধ

ওজন কমানোর প্রাকৃতিক ঔষধ

ওজন বাড়ানোর খাবার তালিকা

কফ কাশির প্রাকৃতিক ঔষধ

কফ বা কাশির প্রাকৃতিক চিকিৎসা

কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার উপায়

কোষ্টকাঠিন্য থেকে মুক্তির উপায়

গরম পানি খাওয়ার উপকারিতা

গরম পানি খাওয়ার ১০ টি উপকারিতা

খুশকি দূর করার উপায়

ঘরে বসে খুশকি দূর করার সহজ ১০টি উপায় । খুশকি দূর করার প্রাকৃতিক শ্যাম্পু

চুল পরা বন্ধের উপায়

চুল পড়া বন্ধের প্রাকৃতিক ঔষধ 

দ্রুত ওজন বাড়ানোর উপায়

দ্রুত ওজন বারানোর উপায়

বমি দূর করার উপায়

বমি দূর করার উপায় | বমি হলে করনীয়

ব্যায়াম ছাড়া ওজন কমানোর উপায়

ব্যায়াম ছাড়া ওজন কমানোর ৯ টি সহজ উপায়

দ্রুত ওজন কমানোর খাবার তালিকা

মাসে ১০ কেজি ওজন কমানোর ডায়েট চার্ট




Categories

রসুন এর উপকারিতা | রসুন কিভাবে খেতে হয়?

রসুন এর উপকারিতা

রান্নায় স্বাদ বাড়াতে রসুন এক অনন্য মসলা। তীব্র সুঘ্রাণের কারণে সবজি, মাংস থেকে শুরু করে কাচ্চি, কারি রান্নায়ও রসুনের জুড়ি নেই। রসুনকে বলা হয় ‘পাওয়ার হাউস অব মেডিসিন অ্যান্ড ফ্লেভার’। নিয়মিত কাঁচা বা সিদ্ধ রসুন সেবনে শরীর সুস্থ থাকে।

রসুনের পুষ্টি উপাদান

প্রতি ১০০ গ্রাম রসুনে ১৫০ ক্যালরি শক্তি, ৩৩ গ্রাম কার্বোহাইড্রেট এবং ৬.৩৬ গ্রাম প্রোটিন থাকে। এছাড়াও রসুনে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন বি১, বি২, বি৩, বি৬, ভিটামিন সি, ফোলেট, ক্যালসিয়াম, আয়রন, ম্যাগনেশিয়াম, ম্যাঙ্গানিজ, ফসফরাস, পটাশিয়াম, সোডিয়াম এবং জিঙ্ক রয়েছে।

খালি পেটে রসুন খাওয়ার উপকারিতা

অ্যান্টিঅক্সিডেন্টে ভরপুর রসুন রক্ত পরিশুদ্ধ করে। রক্তে উপস্থিত শর্করার পরিমাণ নিয়ন্ত্রণেও রসুন বেশ সহায়ক। সকালে খালি পেটে কয়েক কোয়া রসুন খেলে সারা রাত ধরে চলা বিপাকক্রিয়ার কাজ উন্নত হয়।

২/৩ টি রসুনের কোয়া কুচি করে সামান্য ঘি’য়ে ভেজে নিন। এটি সবজির সাথে কিংবা এমনি খাওয়ার অভ্যাস করুন। এতে কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা দূর হবে। বাড়তি ওজন কমাতে খালি পেটে গরম পানিতে রসুন এবং লেবুর রস মিশিয়ে খেয়ে নিন।

এ ছাড়া নিয়মিত রসুন খাওয়ার ফলে শরীরের দূষিত টক্সিনও মূত্রের মাধ্যমে বেরিয়ে যায়। শীতকালে প্রতিদিন খালি পেটে এক কোয়া রসুন খেলে ঠান্ডা লাগার প্রবণতা অনেকটা কমে। এটি শক্তিশালী অ্যান্টিবায়োটিক এর মতো কাজ করে।

রসুন হজম ও ক্ষুধার উদ্দীপক হিসেবে কাজ করে। স্ট্রেস বা চাপের কারণে আমাদের গ্যাস্ট্রিক এর সমস্যায় পড়তে হয়। খালি পেটে রসুন খাওয়ার ফলে আমাদের স্নায়বিক চাপও কমে যায়।

রসুনের নানাবিধ ঔষধি গুণাগুণ

রসুন কেবল রান্নায় সুগন্ধ ও স্বাদ বৃদ্ধি করে না পাশপাশি এর ঔষধি গুণ নানা রকমের রোগ প্রতিরোধে সাহায্য করে।

চলুন দেখে নিই, কি কি কারণে রসুন আমাদের কাছে এতো সমাদৃত-


রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে

উচ্চ রক্তচাপ বা হাইপারটেনশন হৃদ রোগের অন্যতম কারণ। এর ফলে রক্তনালী, চোখ, হৃদযন্ত্র, মস্তিষ্ক ও কিডনির মতো গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গগুলো নষ্ট হয়ে যেতে পারে। দৈনিক চার কোয়া করে রসুন খেলে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে থাকবে। এছাড়া রসুনে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি থাকে, যা স্কার্ভি রোগের প্রতিরোধক ও প্রতিষেধক হিসেবে কাজ করে এবং রক্তনালী নমনীয় করে।

শরীরে কোলেস্টেরল লেভেল ঠিক রাখে

রসুন কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতে সাহায্য করে। উপকারি কোলেস্টেরল বা এইচডিএল বাড়াতে ও ট্রাইগ্লিসারাইড কমাতেও এটি সহায়ক। এতে হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি অনেকটা কমে যায়।

অ্যাজমা, কফ, নিউমোনিয়া প্রতিরোধে

রসুন কফের উপশমে ভারি উপকারি ঔষধ। সামান্য তেলে ১/২ কোয়া রসুন ভেজে তা ১ টেবিল চামচ মধুর সাথে মিশিয়ে প্রতিদিন ঘুমাতে যাওয়ার আগে খান, বুকে কফ জমা থেকে মুক্তি মিলবে ইনশা’আল্লাহ।

অ্যাজমা ও নিউমোনিয়ার সমস্যা নিরাময়ে প্রতিদিন রাতে ঘুমানোর আগে দুধে রসুন মিশিয়ে খান। রসুন যক্ষা, ব্রংকাইটিস, ফুসফুসের কনজেশন, হাঁপানি, হুপিং কাশি ইত্যাদিও প্রতিরোধ করে।

জীবনীশক্তি বৃদ্ধি করে

নিয়মিত রসুন খাওয়ার ফলে অ্যালঝাইমার ও ডিমেনসিয়ার প্রকোপ কমে যায়৷ রসুনের ২-৩টি কোয়া কুচিয়ে নিয়ে এক টেবিলচামচ মধু মিশিয়ে নিয়মিত খান। এতে আপনার শরীর ফিট থাকবে এবং এনার্জিতে কোন কমতি হবে না।

অনিদ্রার সমস্যা দূর করে

এক গ্লাস রসুন-দুধ খেয়ে নিন, অনিদ্রাজনিত সমস্যা দূর হয়ে যাবে

রসুন-দুধ পানীয় যেভাবে প্রস্তুত করবেন:

উপকরণ: আধা লিটার দুধ, খোসা ছাড়ানো ১০ কোয়া থেঁতলানো রসুন, সামান্য চিনি এবং ১/২ লিটার পানি।

একটি পাত্রে দুধ ও পানি মেশান। এরপর থেঁতলানো রসুন যোগ করে চুলোয় ভালো করে ফুটিয়ে নিন। সাথে প্রয়োজনমতো চিনি মিশিয়ে নিন। তাৎক্ষণিক ফলাফল পেতে এটি উষ্ণ থাকতে থাকতেই পান করুন।

শরীরকে ডিটক্সিফাই করে

রসুনে বিদ্যমান সালফার ‘অরগ্যান ড্যামেজ’ থেকে আমাদের রক্ষা করে। পেটের কৃমি নিরাময়েও রসুন ভারি উপকারি। রসুন প্যারাসাইট, জ্বর, বিষন্নতা এবং ডায়াবেটিসও প্রতিরোধ করে। এক গ্লাস কুসুম গরম পানিতে অর্ধেক পাতিলেবুর রস আর দু’কোয়া রসুন কুচি মিশিয়ে খেলে শরীর থেকে এসব ক্ষতিকর উপাদান সহজে বেরিয়ে যাবে।

হাড় মজবুত করে

বয়স বাড়ার সাথে সাথে অনেকের হাড়ে নানারকম সমস্যা দেখা দেয়। রোজ ২ গ্রাম করে রসুন খাওয়ার ফলে শরীরে ইস্ট্রোজেন হরমোনের মাত্রা বাড়ে। যেসব মহিলাদের মেনোপোজ হয়ে গেছে (এ সময় স্বাভাবিকভাবে মহিলাদের হাড় ভঙ্গুর হয়ে পড়ে), তারাও নিয়মিত রসুন খেলে উপকার পাবেন।

স্কিন ইনফেকশন সারিয়ে তোলে

রসুনে বিদ্যমান অ্যান্টি-ভাইরাল এবং অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল প্রোপার্টি সেল ড্যামেজ এবং ‘এজিং‘ প্রতিরোধ করে। রিঙ্কেল, ফাইন লাইনস, এজ স্পট, ডার্ক স্পট থেকেও স্কিনকে দূরে রাখে রসুন। রসুনের অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি উপাদান ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া নির্মূল করে ব্রণ কমাতে সাহায্য করে।

খাওয়ার নিয়ম: ১ কোয়া কাঁচা রসুন, মধু ও লেবুর সংযোগে চিবিয়ে খান, সাথে প্রচুর পরিমাণে পানি পান করুন।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়

ব্যাকটেরিয়া, ফাঙ্গাস আর প্যারাসাইটের মোকাবিলায় অ্যান্টিবায়োটিক হিসেবে রসুন দারুণ ফলদায়ক। রসুন ইস্ট ইনফেকশন দূর করতে সাহায্য করে। নিয়মিত রসুন সেবনে শরীরে সব ধরনের ক্যান্সারের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি হয়। রসুনের নির্যাস থেকে ‘মাউথ ওয়াশ’ প্রস্তুত করা হয়। নিয়মিত এ ‘মাউথ ওয়াশ’ ব্যবহারে মাড়িতে ব্যাকটেরিয়ার বিস্তার বন্ধ হয়ে যায়।


আরো পড়ুনঃ কিভাবে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করবেন।

 

ব্ল্যাকহেডস দূর করতে

সাধারণত আমাদের ত্বকে অতিরিক্ত তেল জমে ব্ল্যাকহেডস তৈরি হয়। ব্ল্যাকহেডস কমাতেও রসুন বেশ সহায়ক।

ব্যবহার:

খানিকটা রসুন ও টমেটো ব্লেন্ড করে পেস্ট তৈরি করুন। গোসলের আগে এ পেস্ট মুখে মেখে ১৫ মিনিটের মতো রেখে ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে ২-৩ দিন করুন। ব্ল্যাকহেডস দূর করার পাশাপাশি ত্বকে উজ্জ্বলতা ফিরিয়ে আনতে এটি খুব কার্যকর।

চুলের যত্নে রসুন

অল্প বয়সেই চুল পেকে যাচ্ছে?

রসুনে থাকা অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট এ অকালপক্কতা কমাতে দারুণ উপকারি। নারকেল তেলের মধ্যে কয়েক কোয়া রসুন ও একটু গোলমরিচ গুঁড়ো মিশিয়ে নিন। এরপর কম আঁচে ফুটিয়ে নিন। তেল ঠান্ডা হলে এটা ভেজা চুলে লাগান। ২০ মিনিট পর চুল ধুয়ে নিন। চুল থাকবে কালো ও স্বাস্থ্যোজ্জ্বল।

রসুন চুল পড়াও নিয়ন্ত্রণ করে। কয়েকটা রসুনের কোয়া কেটে নিয়ে স্ক্যাল্পে ঘষুন। এ ছাড়া খানিকটা রসুন অলিভ অয়েলে মিশিয়ে ভালো করে ফুটিয়ে নিয়েও স্ক্যাল্পে ম্যাসাজ করতে পারেন।

যৌনশক্তি বৃদ্ধিতে রসুন

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্যমতে, প্রতি মিলিলিটার শুক্রাণুতে ২০ মিলিয়নের কম স্পার্ম থাকলে যেকোনো পুরুষ অনুর্বর হতে পারেন। বাজে খাদ্যাভ্যাস, ধূমপান, অ্যালকোহল, অনিয়ন্ত্রিত জীবন, ব্যায়ামে অনীহা প্রভৃতি কারণে দিন দিন পুরুষের প্রজনন ক্ষমতা কমছে।

যৌন শক্তি বৃদ্ধিতে দৈনন্দিন পুষ্টিকর খাবার-দাবার’ই যথেষ্ট। প্রতিদিনের খাবার মেন্যুতে দুধ, ডিম, মধু, কাঁচা রসুন রাখুন আর নিয়মতান্ত্রিক জীবন যাপন করুন, তাহলে যৌন দুর্বলতায় ভুগবেন না।

মূলত Semen (বীর্য) তৈরিতে রসুনের জুড়ি মেলা ভার। রসুনে এলিসিন নামে রাসায়নিক উপাদান রয়েছে, যা যৌন ইন্দ্রিয়গুলোতে রক্তের প্রবাহ বাড়িয়ে দেয়। কোন রোগের কারণে বা দুর্ঘটনায় আপনার যৌন ইচ্ছা কমে গেলে এটি আপনাকে যৌনশক্তি ফিরে পেতে সাহায্য করবে।

ব্যবহার পদ্ধতি:

২ চামচ কাঁচা আমলকির রসে খানিকটা রসুন বাটা মিশিয়ে নিয়মিত সেবন করুন। এতে স্ত্রী-পুরুষ উভয়ের যৌবন দীর্ঘস্থায়ী হবে।

অথবা, প্রতিদিন দু’কোয়া রসুন খাঁটি গাওয়া ঘি-এ ভেজে মাখন মিশিয়ে খান। সাথে গরম পানি বা দুধ খেলে ভাল ফল পাওয়া যাবে।

এছাড়া কোনো ব্যক্তির যৌন ইচ্ছা মাত্রাতিরিক্ত হয়ে গেলে (যা নার্ভাস সিস্টেমের ক্ষতি করতে পারে), তা স্বাভাবিক করে তুলতেও রসুন বেশ কার্যকর।

প্লাক জমাতে বাধা প্রদান করে

রসুন শিরা-উপশিরায় প্লাক জমাতে বাধা প্রদান করে। এটি অথেরোস্ক্লেরোসিসের মত মারাত্মক রোগের হাত থেকেও রক্ষা করে। শিরা-উপশিরায় রক্ত জমাট বাঁধতে রসুন দারুণ সহায়ক।

গিত ব্যথার সমাধানে

রসুন গিট বাতের প্রদাহ উপশম করে। নিয়মিত ২ কোয়া করে রসুন খেলে গিটের বাত সেরে যাবে। রসুন-দুধ খেলেও ভালো ফল পাওয়া যাবে।

শরীরের ফোড়া সারাতে

রসুন যেকোনো পুঁজ ও ব্যথাযুক্ত ফোড়া সারাতে দারুণ কার্যকর। সংক্রমিত স্থানে খানিকক্ষণ রসুনের রস লাগিয়ে রাখুন। শুকিয়ে গেলে তাড়াতাড়ি ধুয়ে ফেলুন। দাদ,খোস পাঁচড়া ইত্যাদি বিভিন্ন চর্মরোগের অত্যন্ত ফলদায়ক প্রতিষেধক রসুন।

কাটা সারিয়ে তুলতে

অসাবধানতাবশত শরীরের কোথাও কাঠ বা বাঁশের ছোট টুকরো ঢুকে গেলে তা বের করে সেখানে রসুনের কোয়া কেটে লাগিয়ে দিন। একই সাথে শরীরের ওই অংশে ব্যান্ডেজ করে দিতে হবে। কয়েকদিনের মধ্যেই এ কাটা সেরে উঠবে।

কর্পূরের সঙ্গে পোড়া রসুন মেশালে মশা, মাছি, পোকামাকড়ের হাত রেহাই পাওয়া যায়। রসুনকে পিষে পানিতে মিশিয়ে ঘর মুছলেও পোকা-মাকড়ের হাত থেকে রেহাই পাওয়া সম্ভব।


রসুনের আচার

রসুনের আচার শুধু স্বাদের জন্য নয়, স্বাস্থ্যের পক্ষেও বেশ উপকারি।

চলুন তৈরি করে নিই, মুখরোচক রসুনের আচার-

প্রয়োজনীয় উপকরণ:

২ কাপ রসুনের কোয়া
১/৪ কাপ তেঁতুল গোলা
আধা ভাঙা ২ চা-চামচ পাঁচফোড়ন
২ চা-চামচ আদা-বাটা
২ টেবিল-চামচ শুকনো মরিচের গুঁড়ো
১/৪ কাপ পেঁয়াজ বেরেস্তা
২ টেবিল-চামচ সরিষা
২ টেবিল-চামচ গুড়
তেজপাতা
লবণ ও কাঁচামরিচ
১/২ কাপ করে সয়াবিন ও সরিষার তেল
দু’তিন টেবিল-চামচ ভিনেগার

প্রস্তুত প্রণালী:

প্রথমে সরিষা ও আদাবাটায় খানিকটা লেবুর রস মিশিয়ে একটি পাত্রে রেখে দিন। এরপর চুলায় কড়াই বা ফ্রাইপ্যানে সরিষার তেল ঢালুন।

প্যানে তেল গরম হলে অর্ধেক পাঁচফোড়ন ও তেজপাতা দিন। তেল ফুটে উঠলে আদা ও সরিষা পেস্ট, সিরকা, টালা শুকনা-মরিচের গুঁড়ো তেলে দিয়ে নাড়তে থাকুন।

এরপর ভালোভাবে পেস্টটি মিশে গেলে রসুনগুলো ঢেলে আঁচ বাড়িয়ে নাড়তে থাকুন। তেল ও মসলা ফুটে এলে ঢাকনা দিয়ে ঢেকে দিন।

খানিকক্ষণ পর রসুন সিদ্ধ হয়ে এলে আঁচ কমিয়ে দিন এবং পেঁয়াজ বেরেস্তা ও পরিমাণমতো গুড় ও লবণ দিন। মাঝে মাঝে নেড়ে দিতে হবে যেন লেগে না যায়।

এবার বাকি অর্ধেক পাঁচফোড়ন দিয়ে দিন। ঝোল শুকিয়ে এলে তেল ছাড়ার দুই মিনিট পর নামিয়ে ফেলুন।

আচার ঠাণ্ডা হলে শুকনো কাঁচের বৈয়ামে ভরে রেখে দিন। ঠান্ডা জায়গায় আচার রাখলে অনেক দিন ভালো থাকবে। ফ্রিজে রেখে এ আচার সংরক্ষণ করতে পারেন। আচার তোলার সময় শুকনা চামচ ব্যবহার করবেন। সতর্ক থাকুন যাতে আচারে পানি ঢুকে ফাঙ্গাস পড়ে না যায়।

আপনি চাইলে শুধু সিরকায় শুকনো মরিচ, লবণ দিয়ে কাশ্মীরি আচারের মতো করে রসুন কোয়া জ্বাল দিয়ে ঠান্ডা করে বৈয়ামে রাখতে পারেন।

আচারের স্বাস্থ্যগুণ

রসুনের আচার আমাদের শরীরের জন্য ন্যাচারাল অ্যান্টিবায়োটিক হিসেবে কাজ করে। সর্দি, কাশি, হৃদরোগ, কোলেস্টেরল ইত্যাদি সমস্যার দ্রুত প্রতিকারে রসুনের আচারে মধু মিশিয়ে খান। যারা কেমোথেরাপি নিচ্ছেন তাদের জন্যও রসুনের আচার ভালো প্রতিষেধক।

অতিরিক্ত রসুন খাওয়ার ফলে কি কি সমস্যা হতে পারে/ সতর্কতা

শ্বাসকষ্টে ভুগছেন এমন রোগীদের রসুন না খাওয়াই ভালো। কাঁচা রসুন খাওয়া মাথা ব্যথা, বমি ইত্যাদির অন্যতম কারণ। এমনকি অতিরিক্ত রসুন খাওয়ার ফলে নিঃশ্বাসে দুর্গন্ধ সৃষ্টি হতে পারে।

যেকোনো অপারেশনের কয়েকদিন আগে থেকে রসুন খাওয়া বন্ধ করে দেয়া উচিৎ। যাদের শরীর থেকে রক্তপাত সহজে বন্ধ হয় না, অতিরিক্ত রসুন খাওয়া তাদের জন্য বিপদজনক।

যারা ‘ওয়ারফারিন’ ‘অ্যাসপিরিন’ ইত্যাদি ‘ব্লাড থিনার’ ধরনের ওষুধ সেবন করেন, তারা অতিরিক্ত রসুন খাওয়া এড়িয়ে চলুন। কারণ, এতে রক্ত অতিরিক্ত পাতলা হয়ে অভ্যন্তরীণ রক্তপাত শুরু হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

গর্ভবতী নারীদের রসুন খাওয়া থেকে বিরত থাকা উচিৎ। এতে ‘লেইবার পেইন’ বা প্রসব বেদনা বেড়ে যেতে পারে। শিশুকে দুগ্ধদানকারী মায়েদেরও রসুন খাওয়া পরিহার করা দরকার। রসুন খাওয়ার ফলে তা মায়ের দুধের মাধ্যমে শিশুর পাকস্থলীতে ঢুকে শিশুর পেট ব্যথার কারণ হতে পারে।

যকৃত শরীরের রক্ত পরিশোধন, চর্বি ও প্রোটিন বিপাক, শরীর থেকে অ্যামোনিয়া অপসারণ ইত্যাদি কাজ সম্পন্ন করে থাকে। মাত্রাতিরিক্ত রসুন খাওয়ার ফলে এতে বিদ্যমান ‘অ্যালিসিন’ যকৃতে বিষক্রিয়া তৈরি করতে পারে।

নারীর জননাঙ্গে ‘ইস্ট’ জনিত প্রদাহের চিকিৎসা চলাকালীন রসুন থেকে দূরে থাকা উচিৎ।

অতিরিক্ত রসুন খাওয়ার কারণে ‘হাইফিমা’ হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। এতে ‘আইরিস’ ও ‘কর্নিয়া’র মাঝে রক্তক্ষরণ ঘটতে পারে। ফলে দৃষ্টিশক্তি হারানোর মারাত্মক ঝুঁকি রয়েছে।

সুস্থ জীবনের জন্য স্বাস্থ্যসম্মত খাবারের পাশাপাশি পর্যাপ্ত ব্যায়াম খুব জরুরি। নিয়মিত ব্যায়ামের ফলে শরীরে হরমোনের প্রবাহ বাড়ে। এজন্য নিজের কাজ, মিটিং বা অন্যান্য প্রয়োজনের মাঝেও ব্যায়ামের জন্য প্রতিদিন কিছু সময় বের করুন। প্রতিদিন ঘুম থেকে উঠে রোজকার কাজকর্মের একটা ছক কষে নিন। নতুন আশা, নতুন আকাঙ্ক্ষা জড়িয়ে থাকে প্রতিটি প্রভাতে-ই!

Source:

https://www.healthline.com/nutrition/11-proven-health-benefits-of-garlic
https://food.ndtv.com/food-drinks/powerhouse-of-medicine-and-flavour-surprising-health-benefits-of-garlic-1200468?amp=1&akamai-rum=off
http://www.bbc.co.uk/sn/humanbody/truthaboutfood/healthy/erectiledysfunction.shtml
https://www.medicalnewstoday.com/articles/265853

আপনার পছন্দের লেখাগুলো নিয়মিত পেতে ইমেইল দিয়ে এখনি সাবস্ক্রাইব করুন।
সর্বশেষ পোস্টগুলো
আমার ওজন কমানোর গল্প

আমার ৩৪ কেজি ওজন কামানোর কথা

home remedies for insomnia

অনিদ্রা দূর করার উপায় । ১০ টি ঘরোয়া ঔষধ

আঁচিলের প্রাকৃতিক চিকিৎসা

আঁচিলের প্রাকৃতিক চিকিৎসা

আমার ওজন কমানোর খাবার তালিকা

আমার ওজন কমানোর খাবার তালিকা বা ডায়েট চার্ট

অতিরিক্ত ওজন কমানোর ঔষধ

ওজন কমানোর প্রাকৃতিক ঔষধ

ওজন বাড়ানোর খাবার তালিকা

কফ কাশির প্রাকৃতিক ঔষধ

কফ বা কাশির প্রাকৃতিক চিকিৎসা

কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার উপায়

কোষ্টকাঠিন্য থেকে মুক্তির উপায়

গরম পানি খাওয়ার উপকারিতা

গরম পানি খাওয়ার ১০ টি উপকারিতা

খুশকি দূর করার উপায়

ঘরে বসে খুশকি দূর করার সহজ ১০টি উপায় । খুশকি দূর করার প্রাকৃতিক শ্যাম্পু

চুল পরা বন্ধের উপায়

চুল পড়া বন্ধের প্রাকৃতিক ঔষধ 

দ্রুত ওজন বাড়ানোর উপায়

দ্রুত ওজন বারানোর উপায়

বমি দূর করার উপায়

বমি দূর করার উপায় | বমি হলে করনীয়

ব্যায়াম ছাড়া ওজন কমানোর উপায়

ব্যায়াম ছাড়া ওজন কমানোর ৯ টি সহজ উপায়

দ্রুত ওজন কমানোর খাবার তালিকা

মাসে ১০ কেজি ওজন কমানোর ডায়েট চার্ট




Categories

অলিভ অয়েল খাওয়ার উপকারিতা ও ব্যবহার

অলিভ অয়েল খাওয়ার উপকারিতা

শরীরকে রোগমুক্ত রাখতে অলিভ অয়েলের জুড়ি নেই। এটি রক্তে শর্করার পরিমাণ নিয়ন্ত্রণ করে। সেই সঙ্গে কমায় কোলেস্টেরলের মাত্রা, হৃদরোগের ঝুঁকি, ডায়াবেটিস, এবং হজমের সমস্যা। এর পাশাপাশি রান্নায় স্বাদ-গুণ বাড়াতে অলিভ অয়েলের ব্যবহার অতুলনীয়। অলিভ অয়েল শুধু খাওয়ার জন্যই নয়, এটি গায়েও মাখা যায়। এতে ত্বকের জন্য উপকারী নানা পুষ্টিগুণ রয়েছে।

 

অলিভ অয়েলের পুষ্টিগুণ

অলিভ অয়েলে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন কে, ই, ক্যালসিয়াম এবং পটাসিয়াম আছে। এটি oleic acid ও palmitoleic acid-এর মতো উপকারী উপাদানেও সমৃদ্ধ। অলিভ অয়েলে বিদ্যমান অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রক্তে মিশে থাকা ক্ষতিকর টক্সিক উপাদানগুলোকে ধ্বংস করে দেয়। ফলে আমাদের শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কয়েকগুণ বেড়ে যায়।



অলিভ অয়েলের নানাবিধ কার্যকারিতা

শীতকালে অলিভ অয়েল খাওয়া শরীরের জন্য খুবই উপকারী। যারা দীর্ঘদিন ধরে গ্যাস্ট্রিকের সমস্যায় ভুগছেন তারা প্রতিদিন একটা করে জলপাই খান। নিয়মিত জলপাই খেলে পিত্তথলির পিত্তরস ভালভাবেকাজ করে। পিত্তথলিতে পাথর হওয়ার ঝুঁকি কমে যায়।

শুধু তাই নয়, অলিভ অয়েল সর্দি-কাশিও প্রতিরোধ করে। এতে রয়েছে ফ্যাটি অ্যাসিড, যা ত্বক ও চুলের জন্য ভীষণ উপকারী। যাদের চুল পড়ার সমস্যা রয়েছে, তারা নিয়মিত জলপাই খান এবং প্রয়োজনে চুলে অলিভ অয়েল লাগান। এটি চুলের গোড়া মজবুত করে এবং চুলে উজ্জ্বলতা ফিরিয়ে আনে। এর পাশাপাশি জলপাইয়ের তেল সেলুলার স্ট্রেস কমিয়ে অকাল বার্ধক্য রুখে দেয়।

চলুন একনজরে দেখে নিই, অলিভ অয়েল কিভাবে আমাদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করে-

অলিভ অয়েলে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে উপকারী ফ্যাট

শরীরকে সুস্থ রাখতে অলিভ অয়েলে থাকা উপকারী ফ্যাট প্রয়োজন। বিশেষ করে হরমোনাল এবং ব্রেন ফাংশন ঠিক রাখতে উপকারী ফ্যাটের কোনো বিকল্প নেই। তাই, নিয়মিত অলিভ অয়েল খাওয়া খুব জরুরি। বিশেষ করে oleic acid-এর মতো monounsaturated fat স্বাস্থ্যের জন্য খুবই অনুকূল। এতে আরো রয়েছে ওমেগা সিক্স ফ্যাটি অ্যাসিড, যা দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে আমাদের বাড়তি সুরক্ষা দেয়।

কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতে সাহায্য করে

আমাদের খাদ্যাভ্যাসে অলিভ অয়েলের ব্যবহার খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখে। ফলে হার্টের যেকোনো বড় ধরনের ক্ষতির আশঙ্কা হ্রাস পায়।, অলিভ অয়েলে উপস্থিত polyphenols নামক উপাদানটি কোষের কর্মক্ষমতা বাড়িয়ে তোলে। এ কারণে arterial wall-এর ইলাস্টিসিটি বৃদ্ধি পায়। আমাদের পাকস্থলীর জন্য এ তেল দারুণ উপকারী।

ডায়াবেটিসকে দূরে রাখে

নিয়মিত এক্সট্রা ভার্জিন অলিভ অয়েল খান, দেখবেন ডায়াবেটিস আপনার ধারে কাছেও ঘেঁষতে পারবে না। কারণ, অলিভ অয়েলে বিদ্যমান পলি ও মনোস্যাচুরেটেড ফ্যাট গ্লুকোজের মাত্রা কমিয়ে দেয় এবং কার্বোহাইড্রেট শোষণ করে, যা ইনসুলিনের কর্মক্ষমতাকে বাড়িয়ে তোলে। এর ফলে রক্তে শর্করার মাত্রা বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা কমে যায়।

পেটের রোগের প্রকোপ কমে

গ্যাস-অম্বলের সাথে বদহজমের সমস্যাও এখন আমাদের নিত্যদিনের সঙ্গী, তেমনি আছে বদহজমের সমস্যাও। অলিভ অয়েলে রয়েছে monosaturated fat যা bowel movement এর উন্নতি ঘটাতে সাহায্য করে। সেই সঙ্গে কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যাও দূর হয়ে যায়। তাই, বিশেষজ্ঞরা বেশি বেশি অলিভ অয়েল খাওয়ার পরামর্শ দেন। নিয়মিত এক চামচ অলিভ অয়েলের সঙ্গে সমপরিমাণ লেবুর রস মিশিয়ে খেলে কোষ্ঠকাঠিন্য ভাল হয়।

ক্যান্সারের মতো মরণব্যাধি দূরে রাখে

জলপাইয়ের তেলে বিদ্যমান অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট আমাদের দেহের ক্ষতিকর টক্সিক উপাদানকে ধ্বংস করে oxidative damage প্রতিরোধ করে। সেই সঙ্গে এটি ক্যান্সার সেলগুলিকেও ধ্বংস করে দেয়। নিয়মিত অলিভ অয়েল খাওয়ার ফলে আমাদের দেহের অস্বাভাবিক কোষ গঠন বাধাপ্রাপ্ত হয়। পাশাপাশি এটি এপিজেনিক পরিবর্তন থেকেও শরীরকে রক্ষা করে। ফলে ক্যান্সারের ঝুঁকি অনেকাংশে হ্রাস পায়।

রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখে

অলিভ অয়েলে প্রচুর পরিমাণে আনস্যাচুরেটেড ফ্যাট ও পলিফেনাল মজুদ থাকে, যা রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখে। তাই, পরিবারের সদস্যদের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় বাসায় তৈরি খাবারে অলিভ অয়েল ব্যবহার করুন। বাড়তি পুষ্টিগুণ পেতে কাঁচা অলিভ অয়েলও খেতে পারেন।

স্ট্রেস-ডিপ্রেশনের প্রকোপ কমায়

অলিভ অয়েল খাওয়া মাত্র শরীরে serotonin নামে এক প্রকার ‘ফিল গুড’ হরমোন নিঃসৃত হয়। এটি ডিপ্রেশন কমাতে সাহায্য করে। তাছাড়া অলিভ অয়েলে বিদ্যমান ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিড মানসিক অবসাদ প্রতিরোধে অনেক বেশি কার্যকর।

ব্রেন পাওয়ার বৃদ্ধিতে

ব্রেন পাওয়ার বাড়াতে অলিভ অয়েলের জুড়ি নেই। এতে উপস্থিত ফ্যাটি অ্যাসিডসমূহ মস্তিষ্কের উর্বরা শক্তি বৃদ্ধি করে। শুধু তাই নয়, এটি ব্রেন সেলে তৈরি হওয়া Beta-Amyloid Plaque-ও দূর করে। এর ফলে স্নায়ু কোষগুলো সচল হয় এবং কর্মক্ষমতা বাড়ে।

ওজন নিয়ন্ত্রণে

চটজলদি ওজন কমাতে অলিভ অয়েল খেতে ভুলবেন না। এটি হজমে সাহায্য করে এবং রক্তের শর্করা নিয়ন্ত্রণে রাখে। তাছাড়া জলপাইয়ে বিদ্যমান ভিটামিন-ই, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, ফ্ল্যাভেন-৩-ওলস, অ্যানথোসায়ানিন, ফ্ল্যাভোনয়েড ও পলিমারস্ ফ্রি radical প্রতিরোধ করে ওজন হ্রাস করতে সহায়তা করে।



শরীরের প্রদাহ কমে

শরীরে প্রদাহের মাত্রা বাড়তে শুরু করলে যেমন হার্টের মারাত্মক ক্ষতি হয়, তেমনি ক্যান্সার, ডায়াবেটিস, এবং আর্থ্রাইটিস-এর মতো রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কাও বাড়ে। অনাকাঙ্ক্ষিত এই প্রদাহ হ্রাসে অলিভ অয়েল দারুণভাবে কার্যকর। এতে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট ও অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি উপাদান রয়েছে, যা খুব অল্প সময়ের মধ্যে প্রদাহের মাত্রাকে নিয়ন্ত্রণে আনে এবং স্বাস্থ্যসুরক্ষা দেয়।

শরীরের ব্যথা নিরাময়ের জন্য

২০০ মিলিলিটার পানির সঙ্গে ২০ চামচ অলিভ অয়েল মিশিয়ে নিন। সাথে যোগ করুন ১০ চামচ সৈন্ধব লবণ। প্রতিদিন এভাবে অলিভ অয়েল ও লবণের মিশ্রণ তৈরি করে ব্যথার স্থানে ১৫ মিনিট ধরে মালিশ করুন।

হৃদরোগের ঝুঁকি কমায়

হৃদরোগীদের জন্য অলিভ অয়েল খুবই উপকারী। দুর্বল হার্টের জ্বালানি হিসেবে প্রয়োজনীয় চর্বির জোগান দেয় অলিভ অয়েল। এই লক্ষ্যে ছোট একটি কড়াইয়ে দেড় কাপ এক্সট্রা ভার্জিন অয়েল, ৮-১০টি শুকনা রোজমেরি পাতা, সামান্য সামুদ্রিক লবণ ও গোলমরিচ নিন। এরপর ৫-১০ মিনিট ধরে এটি জ্বাল দিন। কিছুক্ষণ পর চুলা থেকে নামিয়ে নির্যাসটুকু গ্রহণ করুন এবং বোতলে সংরক্ষণ করুন। ভালো ফল পেতে আপনি সালাদ, স্যুপসহ অন্যান্য পছন্দের খাবারের সঙ্গে তৈরিকৃত জেলিটি ব্যবহার করতে পারেন।

কানের সমস্যায় অলিভ অয়েল

কানের মধ্যে চুলকানি এবং দুর্গন্ধ হওয়া এমন বেশ কিছু সাধারণ সমস্যা অনেকেরই রয়েছে। এসব সমস্যা দূর করতে একটা কটন বার অলিভ অয়েলে ভিজিয়ে খুব সাবধানে কানের মধ্যে ব্যবহার করুন।

নাক ডাকা বন্ধ করতে

অলিভ অয়েলে থাকা ঔষধিগুণ নাক ডাকা বন্ধ করতে সাহায্য করে। তাই, প্রতিদিন ঘুমাতে যাওয়ার আগে এক চুমুক অলিভ অয়েল খেয়ে নিন। এটি আপনার কণ্ঠনালীকে পিচ্ছিল করে দেয় এবং নাক ডাকা বন্ধ করে।

ডার্ক সার্কেল দূর করতে

চোখের নিচে কালি পড়লে রাতে ঘুমানোর আগে সামান্য অলিভ অয়েল ম্যাসাজ করে নিন। এবং পরদিন সকালে ধুয়ে ফেলুন। নিয়মমাফিক প্রতিদিন অলিভ অয়েল ব্যবহারে চোখের নিচের কালো দাগ দূর হয়ে যায়।

তাছাড়া অলিভ অয়েল আমাদের ভিটামিন ‘এ’র অভাব পূরণ করে। এটি রাতকানা ও গ্লুকোমা-সহ চোখের অন্য সব রোগ থেকে আমাদের রক্ষা করে।

পা ফাটা সমস্যার সমাধান

পায়ের দুরবস্থার কারণে কারও সামনে পা বের করতে বিব্রত হচ্ছেন? রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে পায়ে অলিভ অয়েল ম্যাসাজ করে নিন এবং ঘুমানোর সময় মোজা পরে ঘুমান। আর পরদিন সকালে নরম তুলতুলে পায়ে পছন্দের স্যান্ডেল পড়ে চলে যান আপনার গন্তব্যস্থলে।

ঠোঁটের স্ক্রাবার হিসেবে

ঠোঁটে মাঝে মাঝে মরা চামড়া জমে কালচে দেখায়। এ সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে অলিভ অয়েল ও লেবুর রস একসঙ্গে মিশিয়ে ঠোঁটে ঘষুন। এতে ঠোঁটের মরা চামড়া দূর হয়ে যাবে। পাশাপাশি ঠোঁটের কোমলতা ধরে রাখতে এবং ঠোঁট ফাটা রুখতে এক চা চামচ অলিভ অয়েল, কয়েক ফোঁটা লেবুর রস ও আধ চামচ চিনি মিশিয়ে নিন। এই মিশ্রণ ঠোঁটে লাগিয়ে চিনি না গলে যাওয়া অবধি ম্যাসাজ করুন।

নখের যত্নে

ভঙ্গুর নখ এবং নখের চামড়ার বাইরের স্তর সুস্থ, সুন্দর এবং কোমল রাখার জন্যও অলিভ অয়েল দারুণ উপযোগী। কয়েক ফোঁটা এক্সট্রা ভার্জিন অলিভ অয়েল হাতের আঙুলে নিয়ে নখের উপরে এবং চারপাশে ভালোভাবে মালিশ করুন। এতে নখ শক্ত ও উজ্জ্বল হয়ে উঠবে। অথবা, প্রতিদিন রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে নখ ও এর আশেপাশের ত্বকে অলিভ অয়েল ম্যাসাজ করে নিন। ধীরে ধীরে নখ ভাঙ্গার প্রবণতা কমে যাবে এবং নখ হয়ে উঠবে আকর্ষণীয়।

আয়রনের ভালো উৎস

আয়রনের অভাব দেখা দিলে আমাদের দেহাবস্থিত টিস্যুগুলো পর্যাপ্ত পরিমাণে অক্সিজেন পায় না। ফলে শরীর দুর্বল হয়ে পড়ে। আয়রন শরীরে শক্তি উৎপাদনের এক দারুণ উৎস। আয়রনের ঘাটতি দূর করতে প্রতিদিন কালো জলপাই খেতে পারেন। এতে প্রচুর পরিমাণে আয়রন ও ভিটামিন রয়েছে। সর্বোপরি শারীরবৃত্তীয় কাজ সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করার জন্য পরিমিত পরিমাণে আয়রনসমৃদ্ধ খাবার খেতে হবে।

অলিভ অয়েল বাথ

এক বালতি পানিতে ৫ টেবিল চামচ অলিভ অয়েল মিশিয়ে গোসল করুন। অথবা, গোসলের আগে অলিভ অয়েল দিয়ে পুরো শরীর ম্যাসাজ করে নিলে ভাল ফলাফল পাবেন।

মেক-আপ রিম্যুভার

বিশেষজ্ঞদের মতে, চোখের মেইকাপ তোলার জন্যও সবচেয়ে ভালো হচ্ছে অলিভ অয়েল। চোখের পাপড়িতে লাগানো মাশকারা ওঠাতে কিংবা চোখের নিচের কালো দাগ এবং রিঙ্কল দূর করতেও এটি ভালো কাজ করে। অলিভ অয়েল চোখের চারপাশের কুঁচকে থাকা ত্বককে হাইড্রেট করে আরো নরম করে তোলে। আর ত্বকের মেকআপ তুলতে আঙ্গুলের ডগায় অথবা কটন প্যাডে অলিভ অয়েল লাগিয়ে নিন। তারপর সার্কুলার মোশনে আস্তে আস্তে সমস্ত মেক-আপ তুলে ফেলুন। তারপর ভালো মানের ক্লিনজার দিয়ে আপনার মেক-আপ তোলার প্রক্রিয়া সম্পন্ন করুন।



অলিভ অয়েল মুখে দিলে কি হয়

অলিভ অয়েলে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল এজেন্টস্ রয়েছে যা ত্বককে সূর্যের ক্ষতিকর প্রভাব থেকে রক্ষা করে। তাই বাইরে বেরোনোর আগে মুখে খানিকটা অলিভ অয়েল মেখে নিন।

তাছাড়া অলিভ অয়েল ব্রণ প্রতিরোধকও বটে। মুখে ব্যবহারের জন্য ৪ টেবিল চামচ লবণের সাথে ৩ টেবিল চামচ অলিভ অয়েল মিশিয়ে একটি পেস্ট তৈরি করুন। তারপর এই পেস্ট ২ মিনিট ধরে ম্যাসাজ করুন। নিয়মমতো এক সপ্তাহ এই পেস্ট ম্যাসাজ করলে আপনি অবশ্যই মুখের পরিবর্তন দেখতে পাবেন।

এমনকি, অন্য যেকোনো তেলের তুলনায় অলিভ অয়েল খুবই হাল্কা বিধায় এটি খুব সহজেই মুখের সঙ্গে মিশে যেতে পারে। সেজন্য ১/২ কাপ অলিভ অয়েল, ১/৪ কাপ ভিনেগার আর ১/৪ কাপ পানি মিশিয়ে একটি সলিউশন তৈরি করুন, যা রাতে ঘুমানোর সময় নাইট ক্রিমের মত ব্যবহার করতে পারবেন। অলিভ অয়েল স্কিনকে নরম করে তোলে, এবং ভিনেগার ব্যাকটেরিয়া ধ্বংস করে ত্বকের সুরক্ষা প্রদান করে।

 

চুলে অলিভ অয়েলের উপকারিতা

আপনার চুলের সুরক্ষায় অলিভ অয়েল ব্যবহার করতে পারেন। অলিভ ওয়েল ময়েশ্চরাইজার হিসেবে চমকপ্রদ ফল দেয়।

অলিভ বা জলপাইয়ের তেল চুলকে ঘন ও উজ্জ্বল করে তুলতে সাহায্য করে। ডিমের কুসুমের সঙ্গে কয়েক ফোঁটা জলপাই তেল নিয়ে চুলে ব্যবহার করলে চুল কোমল ও আকর্ষণীয় হয়ে উঠে। চায়ের লিকার, লেবুর রস ও অলিভ অয়েল ভালো করে মিশিয়ে নিয়েও চুলে ব্যবহার করতে পারেন। এটা হেয়ার ট্রিটমেন্টের কাজ করে।

চুলের বাড়তি যত্ন নিতে নিচের পদ্ধতি অনুসরণ করুন-

  • ১। যাঁদের খুশকির সমস্যা রয়েছে, তাঁরা সপ্তাহে দু’দিন ভাল করে মাথায় এই তেল ম্যাসাজ করুন। তেলের সঙ্গে কয়েক ফোঁটা লেবুর রস মিশিয়ে নিলে খুব ভাল ফল পাওয়া যায়। পাশাপাশি সমপরিমাণ জলপাই তেল আর বাদামের তেল একসাথে মিশিয়ে চুলের গোড়ায় ঘষে ঘষে লাগিয়ে ১ ঘণ্টা অপেক্ষা করে শ্যাম্পু করে ফেলুন। এভাবে ৩ সপ্তাহ করলে খুশকি অনেকটা কমে আসবে।
  • ২। তাছাড়া অলিভ অয়েলের সঙ্গে অল্প নারকেল তেল মিশিয়ে চুলের আগা তাতে চুবিয়ে রাখুন। এতে চুল নরম থাকে, এবং ফাটার আশঙ্কা আর থাকে না।
  • ৩। আবার চুলের ফ্রিজিনেস দূর করার জন্য একটি চিরুনি অলিভ অয়েলের মধ্যে ডুবিয়ে নিয়ে চুল আঁচড়ে নিন। এতে চুল ময়েশচার হয়ে ফ্রিজিনেস কেটে যাবে।
  • ৪। কন্ডিশনারের পরিবর্তেও আপনি অলিভ অয়েল ব্যবহার করতে পারেন। শ্যাম্পু করার পর হাতের তালুতে কয়েক ফোঁটা অলিভ অয়েল নিয়ে ভালো ভাবে দুই হাতে ঘষে ফেলুন। তারপর এটি আলতো করে চুলে লাগিয়ে নিন।
  • ৫। আর প্রতি সপ্তাহে অন্ততপক্ষে একবার হালকা গরম অলিভ অয়েল চুলে ভালো ভাবে ম্যাসাজ করুন। এভাবে ২/৩ ঘন্টা চুলে তেল লাগিয়ে রেখে শ্যাম্পু করুন। তারপর নিজেই লক্ষ করবেন শাইনি আর স্বাস্থ্যকর চুলের বাহার।

এভাবে বাসায় বসে আপনি ভেষজগুণসমৃদ্ধ অলিভ অয়েল ব্যবহারে চুলের যত্ন নিতে পারেন।

 

ত্বকে অলিভ অয়েলের উপকারিতা

অলিভ অয়েলে বিদ্যমান অ্যান্টি-অক্সিডেন্টস্ ত্বককে আলট্রা-ভায়োলেট রেডিয়েশন থেকে রক্ষা করে। এতে স্কিন ক্যান্সারের ঝুঁকি হ্রাস পায়। অলিভ অয়েলে আরো রয়েছে ভিটামিন এ এবং ই যা ত্বককে সতেজ রাখে। তাই, প্রতিদিন বাসায় ফিরে গোসল করার পর সামান্য পানির সাথে অলিভ ওয়েল মিশিয়ে সারা শরীরে ম্যাসেজ করুন। দেখবেন শরীরের ক্লান্তি দূর হয়ে যাবে এবং সারারাত শরীরে ভেজাভাব বজায় থাকবে। প্রতিদিন এভাবে অলিভ অয়েল দিয়ে শরীরের ত্বক ভালোভাবে ম্যাসাজ করলে সহজে বলিরেখা পড়ে না।

পাশাপাশি শরীরের কোথাও কেটে গেলে বা আঁচড় লাগলে অলিভ অয়েল অ্যান্টিসেপটিক হিসেবে কাজ করে। একটি পরিষ্কার পাত্রে প্রয়োজনমত এক্সট্রা ভার্জিন অয়েল, নারকেল তেল, ক্যালেনডুলা ও ল্যাভেন্ডার তেল, মোম, চা পাতা ভালোভাবে মিশিয়ে নিন। এটি ক্ষত সারাতে দারুণভাবে কাজ করে।

জলপাই তেল শিশুর ত্বকের জন্যও নিরাপদ। শিশুদের নিতম্ব থেকে র‌্যাশ দূর করতে সামান্য অলিভ ওয়েল মাখিয়ে দিন। যাদের ত্বকে চুলকানির সমস্যা রয়েছে তারা নির্দ্বিধায় এ তেল গায়ে মাখতে পারেন। অলিভ অয়েল অতিরিক্ত শুষ্ক, ছোপ ছোপ ত্বক কোমল ও মসৃণ করে। জলপাই তেলে রয়েছে হাইড্রেটিং এজেন্ট, যা শিশুর ত্বককে নরম করে তোলে।

 

অলিভ অয়েলের প্রকারভেদ

বাজারে মোটামুটি চার ধরনের অলিভ অয়েল পাওয়া যায়; ক্লাসিক বা ভার্জিন অলিভ অয়েল, এক্সট্রা ভার্জিন অলিভ অয়েল, অলিভ পোমেস অয়েল এবং লাইট ফ্লেভার অলিভ অয়েল। আমাদের প্রাত্যহিক রান্না-বান্নায় সয়াবিন বা সরিষার তেলের বিকল্প হিসেবে অলিভ অয়েল ব্যবহার করতে পারি।

চলুন দেখে নিই বিভিন্ন প্রকার অলিভ অয়েলের পুষ্টিগুণ-

এক্সট্রা ভার্জিন অলিভ অয়েল:

এটি সবচেয়ে উৎকৃষ্ট মানের অলিভ অয়েল। রান্নায় স্বাদ বাড়ানোর জন্য আপনি এক্সট্রা ভার্জিন অলিভ অয়েল ব্যবহার করতে পারেন। মাখনের বিকল্প আপনি হিসেবেও এটি খেতে পারেন। অন্যান্য ভেষজ তেলের তুলনায় এটি অধিক স্বাস্থ্যসম্মত। এক্সট্রা ভার্জিন অলিভ অয়েল জলপাইয়ের আসল নির্যাস থেকে প্রস্তুত করা হয়। এবং এতে অলিক অ্যাসিডের পরিমাণও অনেক কম। একেবারে খাঁটি তেল হিসেবে আপনি এটি গ্রহণ করতে পারেন।

এক্সট্রা ভার্জিন অলিভ অয়েলে রয়েছে জিরো ক্যালোরি। ফলে এটি ওজন কমাতে সাহায্য করে। রান্নায় এক্সট্রা ভার্জিন অলিভ অয়েলের ব্যবহার ডায়াবেটিস প্রতিরোধে সাহায্য করে। এটি দেহে ইনসুলিনের ভারসাম্য বজায় রাখে। পাশাপাশি এক্সট্রা ভার্জিন অলিভ অয়েলে ওমেগা ৩ এবং ওমেগা ৬ ফ্যাটি অ্যাসিড রয়েছে, যা মস্তিষ্কের বিকাশের জন্য অপরিহার্য। এক্সট্রা ভার্জিন অলিভ অয়েলে রয়েছে শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট পলিফেনলস্ এবং ফ্যাট। এটি আমাদের দেহকে নানারকম রোগব্যাধি থেকে রক্ষা করে।

ক্লাসিক বা ভার্জিন অলিভ অয়েল:

রান্না-বান্নায় সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হয় ক্লাসিক অলিভ অয়েল। এতে এসিডের পরিমাণ অত্যন্ত কম। পাস্তা, স্টার-ফ্রাইড ভেজিটেবল বা রাইস তৈরিতে ক্লাসিক অলিভ অয়েলের বিকল্প নেই। এটি ময়েশ্চারাইজার হিসেবেও ভালো কাজ করে। ফলে চুল ও ত্বকে ব্যবহারের জন্যও ক্লাসিক অলিভ অয়েল উপযোগী।

অলিভ পোমেস অয়েল:

গন্ধহীনতা ও লঘু হলুদ রঙের কারণে অলিভ পোমেস রান্নার জন্য আদর্শ তেল। উচ্চ স্ফুটনাঙ্কের কারণে ডিপ ফ্রাইং-এর জন্য খুব ভালো এই তেল। পোলাও, পরোটা এমনকি পাকোড়া তৈরিতেও অলিভ পোমেস অয়েল ব্যবহার করতে পারেন।

লাইট ফ্লেভার অলিভ অয়েল:

হালকা রং ও মৃদু গন্ধের জন্য সহজেই এই অলিভ অয়েল চিনতে পারবেন। এটি দিয়ে কন্টিনেন্টাল রান্না, ভাজি, রোস্ট বা বেকিং এমনকি যেকোনো রকম পদই অনায়াসে তৈরি করতে পারেন।



আসল অলিভ অয়েল চেনার উপায়

আপনার ব্যবহৃত অলিভ অয়েল আসল কিনা এটা নির্ণয়ের জন্য ফ্রিজ টেস্ট অত্যন্ত কার্যকর পদ্ধতি। এজন্য একটি পাত্রে খানিকটা অলিভ অয়েল নিয়ে ২ ঘন্টার জন্য ডিপ ফ্রিজে রেখে দিন। ফ্রিজ থেকে বের করার পর যদি দেখেন অলিভ অয়েল জমে শক্ত হয়ে গেছে অথবা লিকুইড’ই আছে, তাহলে বুঝবেন এটি খাঁটি অলিভ অয়েল নয়। তবে যদি দেখেন, হালকা জমে গেছে অথবা ঘন হয়ে আছে, তখন আপনি এটাকে খাঁটি ধরে নিতে পারেন।

আবার, একটি ছোট কাঁচের পাত্রে খানিকটা অলিভ অয়েল স্প্রে করে তার মুখ আঁটকে দেয়া যেতে পারে। এরপর এতে সামান্য পরিমাণ তাপ প্রয়োগ করুন। পাত্রের ঢাকনা খুললে যদি অলিভ অয়েলের সুগন্ধ আগের চেয়ে বেশি হয়, তবে বুঝতে হবে এটি এক্সট্রা ভার্জিন অলিভ অয়েল। আর সুগন্ধ যদি কমে যায়, তাহলে বুঝে নিবেন এটি আসল এক্সট্রা ভার্জিন অলিভ অয়েল নয়।

দীর্ঘদিন ব্যবহারের জন্য, অলিভ অয়েল সব সময় ঠান্ডা জায়গায় সংরক্ষণ করুন। আর যদি অন্ধকার জায়গায় রাখতে পারেন, তাহলে তো কথাই নেই। খুব উচ্চ তাপমাত্রায় অলিভ অয়েলের পুষ্টিগুণ নষ্ট হয়ে যায়। তাই, কোনোভাবেই অলিভ অয়েলের শিশি উষ্ণ স্থানে ফেলে রাখা যাবে না। এভাবে নিয়ম মেনে অলিভ অয়েল সংরক্ষণ করলে তিন বছর পর্যন্ত এটি ভাল থাকবে।

 

কুর’আন ও হাদিসে অলিভ অয়েলের বর্ণনা

রাসূল (স.) নির্দেশ দেন, তোমরা জয়তুনের তেল(জলপাইয়ের তেল) খাও এবং শরীরে মাখো। কেননা, এটি আসে বরকতময় গাছ থেকে। (সহিহ তিরমিজি, আহমাদ)।

এ প্রসঙ্গে আল্লাহ তা’আলা ইরশাদ করেন, ‘আর তিনি এ পানি দ্বারা তোমাদের জন্য উৎপাদন করেন বিভিন্ন রকম ফসল, জয়তুন (জলপাই), খেঁজুর, আঙুর ও সব ধরনের ফল। নিশ্চয়ই এতে চিন্তাশীলদের জন্য নিদর্শন রয়েছে। (সূরা : নাহল : ১১)

শুধু কোরআন ও হাদিস দ্বারাই এর উপকারিতা বা ব্যবহার প্রমাণিত নয়, বরং চিকিৎসা বিজ্ঞানেও এ নিয়ে ব্যাপক আলোচনা রয়েছে। যখন মানুষের হৃদপিণ্ডের রক্তনালীতে চর্বি জমে, তখন হার্ট অ্যাটাকের আশঙ্কা সবচেয়ে বেশি থাকে। জয়তুন তথা অলিভ অয়েলের পুষ্টিগুণ হার্ট ব্লক হতে বাধা দেয়। তাছাড়া হালকা গরম পানি দিয়ে মুখ ধোয়ার পর কয়েক ফোঁটা জলপাই তেল মুখে মাখলে দারুণ উপকার পাওয়া যায়। জয়তুন তেল অ্যালার্জি প্রতিরোধেও সহায়তা করে। জয়তুনে আছে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন সি, যা ত্বকের ইনফেকশন ও অন্যান্য ক্ষত সারাতে অত্যন্ত কার্যকর।

 

অলিভ অয়েলের দাম

অন্যান্য ভোজ্য তেলের তুলনায় অলিভ অয়েলের দাম খানিকটা বেশি। ব্যান্ডভেদে আন্তর্জাতিক বাজারে অলিভ অয়েলের মূল্যমানে তারতম্য লক্ষ করা যায়। দেশীয় বাজারে প্রতি ১লিটার এক্সট্রা ভার্জিন অয়েলের দাম ১০০০ থেকে ১৩০০ টাকা। ক্লাসিক, পোমেস ও লাইট ফ্লেভার অলিভ অয়েল ১১০০ থেকে ১২০০ টাকায় পাওয়া যায়।

অলিভ অয়েল অপরিমেয় পুষ্টিগুণে ভরপুর। আমাদের শরীর সচল রাখতে এটি অত্যন্ত উপকারি রসদ। খাদ্যগুণ বিবেচনায় ভোজ্য তেল হিসেবে অলিভ অয়েলের চাহিদা এখন সর্বাধিক।

 

Source:

https://www.medicalnewstoday.com/articles/266258
https://food.ndtv.com/food-drinks/olive-oil-amazing-benefits-of-olive-oil-for-health-hair-skin-its-wonderful-uses-1736506?amp=1&akamai-rum=off
https://www.stylecraze.com/articles/amazing-benefits-of-olive-oil-that-you-never-knew/
https://feeds.aarp.org/health/healthy-living/info-2020/olive-oil-benefits.html?_amp=true
https://www.sclhealth.org/blog/2020/01/olive-oil-the-real-thing-has-real-benefits/
https://olivewellnessinstitute.org/

আপনার পছন্দের লেখাগুলো নিয়মিত পেতে ইমেইল দিয়ে এখনি সাবস্ক্রাইব করুন।
সর্বশেষ পোস্টগুলো
আমার ওজন কমানোর গল্প

আমার ৩৪ কেজি ওজন কামানোর কথা

home remedies for insomnia

অনিদ্রা দূর করার উপায় । ১০ টি ঘরোয়া ঔষধ

আঁচিলের প্রাকৃতিক চিকিৎসা

আঁচিলের প্রাকৃতিক চিকিৎসা

আমার ওজন কমানোর খাবার তালিকা

আমার ওজন কমানোর খাবার তালিকা বা ডায়েট চার্ট

অতিরিক্ত ওজন কমানোর ঔষধ

ওজন কমানোর প্রাকৃতিক ঔষধ

ওজন বাড়ানোর খাবার তালিকা

কফ কাশির প্রাকৃতিক ঔষধ

কফ বা কাশির প্রাকৃতিক চিকিৎসা

কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার উপায়

কোষ্টকাঠিন্য থেকে মুক্তির উপায়

গরম পানি খাওয়ার উপকারিতা

গরম পানি খাওয়ার ১০ টি উপকারিতা

খুশকি দূর করার উপায়

ঘরে বসে খুশকি দূর করার সহজ ১০টি উপায় । খুশকি দূর করার প্রাকৃতিক শ্যাম্পু

চুল পরা বন্ধের উপায়

চুল পড়া বন্ধের প্রাকৃতিক ঔষধ 

দ্রুত ওজন বাড়ানোর উপায়

দ্রুত ওজন বারানোর উপায়

বমি দূর করার উপায়

বমি দূর করার উপায় | বমি হলে করনীয়

ব্যায়াম ছাড়া ওজন কমানোর উপায়

ব্যায়াম ছাড়া ওজন কমানোর ৯ টি সহজ উপায়

দ্রুত ওজন কমানোর খাবার তালিকা

মাসে ১০ কেজি ওজন কমানোর ডায়েট চার্ট




Categories

হরেক রকম বাদামের হরেক রকমের উপকারিতা | বাদাম খাওয়ার নিয়ম

বাদাম খেলে কি হয় | বাদাম খাওয়ার উপকারিতা

বন্ধুদের আড্ডায় বাদাম এক অতি পরিচিত খাবার। বছরের পুরো সময়ই ছোট থেকে বড়, সব দোকানেই বাদাম কিনতে পাওয়া যায়। সাধারণত আমরা যে বাদাম খেয়ে থাকি তার নাম চীনা বাদাম। কিন্তু এই বাদাম ছাড়া আরো অনেক রকমের বাদাম রয়েছে। প্রত্যেক বাদামেরই রয়েছে আলাদা আলাদা পুষ্টিগুণ এবং ব্যবহার।

বাদামের প্রকারভেদ

সারাবিশ্বে অসংখ্য রকমের বাদাম রয়েছে। আবহাওয়া ও জলবায়ুর তারতম্যের কারণে একেক অঞ্চলে একেক রকমের বাদাম উৎপন্ন হয়। তবে সারাবিশ্বে মোটামুটি ১০-১২ রকমের বাদাম রয়েছে যেগুলো প্রায় সকলের কাছেই পরিচিত।

সহজলভ্যতা ও বহুল ব্যবহারের দিক থেকে যেসব বাদাম আমাদের কাছে অধিক পরিচিত সেগুলো হলো কাঠবাদাম, চিনাবাদাম, কাজুবাদাম, পেস্তাবাদাম, ব্রাজিলিয়ান বাদাম, চেস্ট নাট ( এক ধরনের গোলাকার বাদাম), হ্যাজেল নাট, ম্যাকাডেমিয়া বাদাম, পিক্যান বাদাম, পিলি বাদাম, পাইন বাদাম ও আখরোট।

বাদাম খাওয়ার উপকারিতা



বাদামে উচ্চমাত্রায় ফ্যাট থাকে। কিন্তু এই ফ্যাট শরীরের জন্য ক্ষতিকর নয়। বরং উপকারী। এছাড়া বাদাম ফাইবার ও প্রোটিনের ভালো উৎস। বিভিন্ন গবেষণা থেকে বাদামের নানাবিধ উপকারের কথা জানা গেছে। বিশেষ করে বাদাম খাওয়ার ফলে হৃদরোগের ঝুঁকি অনেকাংশে কমে যায়। এছাড়া বাদামের আরো যেসকল উপকারিতা রয়েছে সে সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক।

পুষ্টি উপাদানের বড় উৎস: বাদামে বিভিন্ন ধরনের পুষ্টি উপাদান থাকে যার প্রত্যেকটি আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য অপরিহার্য। ৩০ গ্রাম বিভিন্ন ধরনের বাদাম থেকে ১৭৩ ক্যালরি পাওয়া যায়। এছাড়া প্রোটিন ৫ গ্রাম, ফ্যাট ১৬ গ্রাম, ফাইবার ৩ গ্রাম, কার্বোহাইড্রেট ৬ গ্রাম পাওয়া যায়। এর পাশাপাশি বাদামে ভিটামিন ই, ম্যাগনেসিয়াম, ফসফরাস, কপার, ম্যাঙ্গানিজ ও সেলেনিয়াম থাকে।

অ্যান্টি-অক্সিডেন্টে ভরপুর: বাদামকে অ্যান্টি-অক্সিডেন্টের পাওয়ার হাউস বা শক্তিঘর বলা হয়। বিশেষ করে আখরোট ও কাঠবাদামে উচ্চমাত্রায় অ্যান্টি অক্সিডেন্ট পাওয়া যায় যা অক্সিডেটিভ স্ট্রেসের বিরুদ্ধে লড়াই করে শরীরে বিভিন্ন রোগ সৃষ্টির ঝুঁকি কমায়।

বাদাম ওজন কমাতে সহায়ক: বাদামকে উচ্চ ক্যালরি সম্পন্ন খাবার মনে করা হয়। কিন্তু বাদাম খাওয়ার ফলে ওজন বাড়ে না। বরং তা ওজন কমাতে সাহায্য করে। এক গবেষণায় দেখা গেছে, ডায়েটে অলিভ অয়েলের চেয়ে বাদাম খেলে দ্রুত ওজন কমানো সম্ভব। ওজন কমানোর জন্য কাঠবাদাম খুবই উপকারী। কাজুবাদামেরও একই গুণ রয়েছে।

যে সকল নারী অতিরিক্ত ওজনের সমস্যায় ভুগছেন তাদের ডায়েটে বাদাম রাখার পরামর্শ দিয়ে থাকেন চিকিৎসকরা। কারণ ডায়েটে বাদাম রাখলে অন্য নারীদের চেয়ে তিনগুণ দ্রুত ওজন কমানো সম্ভব। অনেকে অতিরিক্ত ফ্যাট থাকার কারণে বাদাম খেতে চান না। তাদের জন্য আশার বাণী হলো আমাদের শরীর বাদামে থাকা ফ্যাট পুরোপুরি শোষণ করে না। যার ফলে বাদামে অতিরিক্ত ফ্যাট থাকলেও বাদাম খেয়ে মোটা হওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম।

বাদাম কোলেস্টেরল ও টাইগ্লিসারাইডের মাত্রা কমায়: অতিরিক্ত কোলেস্টেরল ও টাইগ্লিসারাইডের ফলে শরীর মুটিয়ে যায় এবং ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি থাকে। যদি নিয়মিত বাদাম খাওয়া হয় তাহলে এই সমস্যা থেকে মুক্তি করা সম্ভব। বিশেষ করে পেস্তাবাদাম টাইগ্লিসারাইডের মাত্রা কমায়। প্রায় ১২ সপ্তাহের এক গবেষণায় দেখা গেছে যারা নিয়মিত পেস্তাবাদাম খান, তাদের শরীরে টাইগ্লিসারাইড প্রায় ৩৩% কম। আর কোলেস্টেরলকে নিয়ন্ত্রণ করে বাদামের ফ্যাটি এসিড।

কাঠবাদাম ও হ্যাজেল নাট খাওয়ার ফলে শরীরের জন্য ক্ষতিকর নিম্ন ঘনত্বের লিপোপ্রোটিন (এলডিএল) কমিয়ে উপকারী উচ্চ ঘনত্বের লিপোপ্রোটিনের মাত্রা বাড়ে। কোলেস্টেরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য আখরোট, চিনাবাদাম, পাইন বাদাম ও ম্যাকাডেমিয়া নাটও খুবই উপকারী। এই বাদামগুলো যেভাবে খুশি খেতে পারেন।

প্রদাহ কমাতে সহায়ক: বাদামের মধ্যে প্রদাহ বিরোধী উপাদান রয়েছেন। কোনো চোট, ব্যাকটেরিয়া কিংবা অন্য কোনো কারণে শরীরে প্রদাহ সৃষ্টি হলে বাদাম খাওয়া উত্তম। নিয়মিত বাদাম খেলে ক্ষণস্থায়ী ও দীর্ঘমেয়াদী প্রদাহ থেকে মুক্তি লাভ করা সম্ভব। বিশেষ করে যারা কিডনি ও ডায়াবেটিসের সমস্যা ভুগছেন। এর জন্য খেতে হবে আখরোট, পেস্তাবাদাম, কাঠবাদাম ও ব্রাজিলিয়ান বাদাম।

ফাইবারের ভালো উৎস: ফাইবার আমাদের শরীরের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। যখন খাবারে ফাইবারের অভাব হয় তখন আমাদের শরীরের মধ্যে থাকা ব্যাকটেরিয়ার বংশবিস্তার ঘটে। ফাইবার খাবার হজমে সহায়তা করার পাশাপাশি খাবারের ক্যালরির মাত্রা কমিয়ে দেয়। যার ফলে শরীরে অতিরিক্ত ক্যালরি জমা হতে পারে না। কাঠবাদাম, পেস্তাবাদাম, চিনাবাদাম, পিক্যান, হ্যাজেলনাট, ম্যাকাডেমিয়া বাদাম ও ব্রাজিলিয়ান বাদামে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার থাকে।

বাদাম হৃদরোগের ঝুঁকি কমায়: হৃদযন্ত্রের জন্য বাদাম খুবই উপকারী। বিভিন্ন গবেষণা থেকে জানা গেছে, বাদাম খেলে হৃদযন্ত্রের জন্য ক্ষতিকর কোলেস্টেরলের মাত্রা কমে যায়৷ যার ফলে হৃদরোগ হওয়ার সম্ভাবনাও কম থাকে। একই সাথে স্ট্রোক করার ঝুঁকি হ্রাস পায়।

কাজুবাদামের উপকারিতা

নিয়মিত কাজুবাদাম খেলে হৃদরোগ ও স্ট্রোকের ঝুঁকি কম থাকে।

কাজুবাদামে উচ্চমাত্রায় কপার থাকে। যা রক্তের দূষিত কণিকা দূর করে রক্তে লৌহের মাত্র বাড়ায়। ফলে রক্তের বিভিন্ন রোগ হওয়ার ঝুঁকি অনেকাংশে কমে যায়।

কাজুবাদামে জিয়া জ্যানথিন নামে এক ধরনের শক্তিশালী পিগমেন্ট থাকে, যা আমাদের চোখকে বিভিন্ন সংক্রমণ থেকে দূরে থাকতে সহায়তা করে।

কাজুবাদামে উচ্চমাত্রায় সেলেনিয়াম, জিঙ্ক, ম্যাগনেসিয়াম, আয়রন ও ফসফরাস থাকে। সেলেনিয়াম আমাদের ত্বকের জন্য খুবই উপকারী। এছাড়া সেলেনিয়াম ক্যান্সারের বিরুদ্ধেও কাজ করে।

কাজুবাদাম ওজন কমাতে সহায়তা করে। এই বাদাম ফাইবারের বড় এক উৎস। নিয়মিত কাজুবাদাম খেলে চুল উজ্জ্বল ও ঘন হয়।

কাজুবাদামের অপকারিতা

অনেক গুনাগুনের পাশাপাশি কাজুবাদামের বিভিন্ন ধরনের অপকারিতাও রয়েছে। অতিরিক্ত কাজুবাদাম খাওয়ার ফলে ওজন বেড়ে যায়৷ এছাড়া কাজুবাদামে উচ্চমাত্রায় ম্যাগনেসিয়াম থাকার ফলে অনেক অ্যান্টিবায়োটিকের কার্যকারিতা মন্থর করে দেয়। যাদের এলার্জির সমস্যা রয়েছে তাদের কাজুবাদাম খেলে সমস্যা হতে পারে। এছাড়া কাঁচা কাজুবাদামের মধ্যে থেকে এক ধরনের বিষাক্ত তরল বের হয় যা শরীরে লাগলে ঘা হয়ে যায়৷ এ কারণে বাজারে খোলযুক্ত কাঁচা কাজুবাদাম পাওয়া যায় না।

কাঠবাদামের উপকারিতা

কাঠবাদাম হৃদরোগ ও স্ট্রোকের ঝুঁকি কমায়।

মস্তিষ্কের সুস্থতা বজায় রাখতে এবং স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধির ক্ষেত্রে কাঠবাদাম গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।
কাঠবাদামে থাকা ভিটামিন -ই ও অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট আমাদের ত্বক সুস্থ রাখে।

কাঠবাদাম ডায়াবেটিস প্রতিরোধ করে।

কাঠবাদাম ওজন বৃদ্ধি ও অতিরিক্ত খাওয়ার অভ্যাস প্রতিরোধ করে।

কাঠবাদাম খাওয়ার পরে শরীরে পুষ্টি উপাদান শোষণ করার ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়।

কাঠবাদাম পাকস্থলির পরিপাক ক্রিয়া ঠিক রাখতে সহায়তা করে।

এই বাদাম শরীরের প্রদাহ কমায় এবং ক্যানসার প্রতিরোধ করে।



কাঠবাদামের অপকারিতা

অতিরিক্ত কাঠবাদাম খাওয়ার ফলে হজমের সমস্যা হয়।

১০০ গ্রাম কাঠবাদামে ২৫ গ্রাম ভিটামিন-ই থাকে। একজন পূর্ণবয়স্ক মানুষ দিনে সর্বোচ্চ ১৫ গ্রাম ভিটামিন-ই গ্রহণ করতে পারেন। অতিরিক্ত ভিটামিন-ই গ্রহণের ফলে ডায়রিয়া, শরীর দুর্বল ও চোখের জ্যোতি কমে যেতে পারে।

অতিরিক্ত কাঠবাদাম খাওয়ার ফলে ওজন বৃদ্ধি পায়।

অতিরিক্ত কাঠবাদাম খেলে শরীরে রক্তচাপের ঔষুধ ও অ্যান্টিবায়োটিক কাজ করতে পারে না।

গর্ভবর্তী মহিলাদের অতিরিক্ত কাঠবাদাম খেলে বাচ্চার সমস্যা হতে পারে।

চিনাবাদামের উপকারিতা

বায়োটিনের বড় উৎস চিনাবাদাম। বায়োটিনকে ভিটামিন বি কমপ্লেক্সের সাথে তুলনা করা হয়। বায়োটিন স্কোরোসিস, ডায়াবেটিস ও মস্তিষ্কের সুস্থতার জন্য গুরুত্বপূর্ণ।

চিনাবাদামে শতকরা ৮০ ভাগ অসম্পৃক্ত ফ্যাট থাকে যা হৃদযন্ত্রের জন্য খুবই উপকারী। নিয়মিত চিনাবাদাম খেলে হৃদরোগের ঝুঁকি কম থাকে।

চিনাবাদামে পর্যাপ্ত অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট থাকে, যা ক্যান্সার প্রতিরোধ করে।

চিনাবাদাম পিত্তথলিতে পাথর হওয়া প্রতিরোধ করে।

চিনাবাদাম মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা বৃদ্ধি করে।

চিনাবাদামের অপকারিতা

অতিরিক্ত চিনাবাদাম খেলে ওজন বৃদ্ধি পায়।

চিনাবাদামে প্রচুর পরিমাণে ফসফরাস থাকে, যা শরীরে অন্যান্য জলীয় উপাদান শোষণে বাধা প্রদান করে।

চিনাবাদামে এলার্জির সমস্যা হতে পারে।

চিনাবাদামে প্রচুর পরিমাণে সোডিয়াম থাকে যা রক্তচাপ বাড়িয়ে দেয়।

পেস্তাবাদামের উপকারিতা

পেস্তাবাদামে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন, ফাইবার ও অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট থাকে।

অন্যান্য বাদামের তুলনায় পেস্তাবাদামে ক্যালরি কম থাকে। কিন্তু অ্যামিনো এসিড থাকে সর্বোচ্চ পরিমাণে যা আমাদের শরীরের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

পেস্তাবাদাম ওজন কমাতে সাহায্য করে।

পেস্তাবাদাম খাওয়ার ফলে রক্তের কোলেস্টেরল মাত্রা কমে যায়৷ ফলে রক্তচাপ স্বাভাবিক থাকে।

পেস্তাবাদাম রক্তে চিনির মাত্রা কমায়।

পেস্তাবাদামের অপকারিতা

অতিরিক্ত পেস্তাবাদাম খাওয়ার ফলে ওজন বৃদ্ধি পায়।

অতিরিক্ত পেস্তাবাদাম রক্তচাপ বাড়িয়ে দেয়।

যারা কিডনির সমস্যায় ভুগছেন তাদের পেস্তাবাদাম পরিহার করা উচিত। এছাড়া অতিরিক্ত পেস্তাবাদাম কিডনিতে পাথর সৃষ্টি করে থাকে।

পেস্তাবাদাম এলার্জির সমস্যা তৈরি করে। এছাড়া অতিরিক্ত ফাইবার থাকায় হজমেও সমস্যা তৈরি করে।

কাঁচা বাদাম খাওয়ার উপকারিতা

কাঁচা বাদাম খেলে বেশি উপকার পাওয়া যায়। বাদাম ভাজলে আগুনের তাপে উপকারী মনোআন্স্যাচুরেটেড এবং পলিআন্স্যাচুরেটেড ফ্যাট নষ্ট হয়ে যায়। আর তেলে ভাজা বাদাম খেলে রক্তচাপ বেড়ে যেতে পারে। তবে ১০-১৫ মিনিট নিম্ন তাপে ভোজ্য তেল ছাড়া বাদাম ভেজে খাওয়া যেতে পারে।

কাঁচা বাদাম খাওয়ার আগে ভালভাবে পরিষ্কার করে নিতে হবে। এতে মানব দেহের জন্য ক্ষতিকর ব্যক্টেরিয়া এবং ফাঙ্গাস থাকতে পারে। কাঁচা বাদাম সারারাত ভিজিয়ে রেখে সকালে খেলে ত্বকের উপকার হয় এবং অধিক পুষ্টিগুণ পাওয়া যায়।

Source:
1.https://www.fastnewsfeed.com/health/disadvantages-of-cashew-nuts-everyone-should-know/
2. https://food.ndtv.com/food-drinks/7-incredible-cashew-nut-benefits-from-heart-health-to-gorgeous-hair-1415221?amp=1&akamai-rum=off#aoh=15732868142020&referrer=https%3A%2F%2Fwww.google.com&amp_tf=From%20%251%24s
3. https://m.timesofindia.com/life-style/health-fitness/photo-stories/5-surprising-side-effects-of-eating-too-many-almonds/amp_etphotostory/60747918.cms
4. https://nuts.com/healthy-eating/benefits-of-peanuts
5. https://www.livestrong.com/article/474309-side-effects-of-eating-too-many-peanuts/
6. https://www.healthline.com/nutrition/9-benefits-of-pistachios#18

আপনার পছন্দের লেখাগুলো নিয়মিত পেতে ইমেইল দিয়ে এখনি সাবস্ক্রাইব করুন।
সর্বশেষ পোস্টগুলো
আমার ওজন কমানোর গল্প

আমার ৩৪ কেজি ওজন কামানোর কথা

home remedies for insomnia

অনিদ্রা দূর করার উপায় । ১০ টি ঘরোয়া ঔষধ

আঁচিলের প্রাকৃতিক চিকিৎসা

আঁচিলের প্রাকৃতিক চিকিৎসা

আমার ওজন কমানোর খাবার তালিকা

আমার ওজন কমানোর খাবার তালিকা বা ডায়েট চার্ট

অতিরিক্ত ওজন কমানোর ঔষধ

ওজন কমানোর প্রাকৃতিক ঔষধ

ওজন বাড়ানোর খাবার তালিকা

কফ কাশির প্রাকৃতিক ঔষধ

কফ বা কাশির প্রাকৃতিক চিকিৎসা

কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার উপায়

কোষ্টকাঠিন্য থেকে মুক্তির উপায়

গরম পানি খাওয়ার উপকারিতা

গরম পানি খাওয়ার ১০ টি উপকারিতা

খুশকি দূর করার উপায়

ঘরে বসে খুশকি দূর করার সহজ ১০টি উপায় । খুশকি দূর করার প্রাকৃতিক শ্যাম্পু

চুল পরা বন্ধের উপায়

চুল পড়া বন্ধের প্রাকৃতিক ঔষধ 

দ্রুত ওজন বাড়ানোর উপায়

দ্রুত ওজন বারানোর উপায়

বমি দূর করার উপায়

বমি দূর করার উপায় | বমি হলে করনীয়

ব্যায়াম ছাড়া ওজন কমানোর উপায়

ব্যায়াম ছাড়া ওজন কমানোর ৯ টি সহজ উপায়

দ্রুত ওজন কমানোর খাবার তালিকা

মাসে ১০ কেজি ওজন কমানোর ডায়েট চার্ট




Categories

মধুর উপকারিতা ও মধু খাওয়ার নিয়ম

মধুর উপকারিতা ও মধু খাওয়ার নিয়ম

প্রকৃতি থেকে প্রাপ্ত উপকারী খাদ্যের মধ্যে মধু অন্যতম। হাজার বছর ধরে এটি  মানুষের নিকট একটি গুরুত্বপূর্ণ খাবার। ধারণা করা হয় যে, প্রাচীন মিশরীয়রা সর্বপ্রথম মধুকে খাদ্য হিসেবে গ্রহণ করার প্রচলন শুরু করে। এর হাজার বছর পর আজ এটি শুধু খাদ্যের মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকেনি! সময়ের পরিক্রমায় মানুষের নিকট গুরুত্বপূর্ণ ঔষধে পরিণত হয়েছে। বর্তমান সময়ে মধু যেমন খুব দামী তেমনি বেশ চাহিদা সম্পন্ন। স্বাস্থ্য সচেতন মানুষের নিকট মধু একটি গুরুত্বপূর্ণ খাদ্য। বিভিন্ন প্রকার ফুল থেকে সংগৃহীত মধুর উপকারিতা, মধুর ব্যবহার ও মধু সেবনের নিয়ম সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে।

মৌমাছিরা বিভিন্ন ফুলের পরাগ রেণু থেকে মধু সংগ্রহ করে সেগুলো মৌচাকে একত্রিত করে। সে জমানো মধু মৌয়ালদের মাধ্যমে সংগ্রহ করে প্রক্রিয়াকরণ এবং প্রক্রিয়াকরণ ছাড়া দু-ভাবেই বাজারজাত করা হয়। মধুতে মানবদেহের জন্য প্রয়োজনীয় বেশকিছু খাদ্য উপাদান রয়েছে। যুগে যুগে মধুর নানা প্রয়োজনীয় ও গুরুত্বপূর্ণ ব্যবহারের কারণে  বিশেষজ্ঞরা একে সোনালি তরল হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন।

মধুতে প্রায় ৪৫টি খাদ্য উপাদান রয়েছে। প্রতি ১০০ গ্রাম মধুতে থাকে ৩০৪ ক্যালরি। এছাড়া মধুতে আরো রয়েছে ৮২ গ্রাম কার্বোহাইড্রেট, ৪ মিলিগ্রাম সোডিয়াম, ৫২ মিলিগ্রাম পটাশিয়াম, ০.৩ গ্রাম প্রোটিন, ২% লৌহ ও ৮২ গ্রাম চিনি। মধুতে কোনোপ্রকার চর্বি ও কোলেস্টেরল নেই। আর এতে যে চিনি থাকে তা একেবারেই প্রাকৃতিক।

মধুর উপকারিতা ও মধু খাওয়ার নিয়ম
মধুর উপকারিতা ও মধু খাওয়ার নিয়মগুলো জেনে নিন।

 

মধুর উপকারিতা

মধু একটি উপকারী তরল খাদ্য। মধু সেবনে বিভিন্ন ধরণের জটিল রোগবালাই থেকে সহজে আরোগ্য লাভ করা যায়। দেহে তাপ ও শক্তি উৎপাদন করার প্রয়োজনীয় উপাদান থাকার কারণে শীতপ্রধান দেশে মধু খুবই জনপ্রিয়। কারণ বছরের নির্দিষ্ট কিছু সময় তাপমাত্রা যখন হিমাঙ্কের নিচে নেমে যায় তখন মধু শরীরে তাপ ও শক্তির যোগান দেয়। এতে করে সেখানকার মানুষ তীব্র শীতেও সুস্থ থাকতে পারেন।

কোষ্ঠকাঠিন্য ও পেটের রোগের জন্য মধু খুবই উপকারী। এতে প্রাকৃতিক শর্করা রয়েছে যা খুব সহজেই খাবার হজমে সহায়তা করে। এতে থাকা ডেক্সট্রিন খাওয়ার পর খুব অল্প সময়ে রক্তে প্রবেশ করে মানবদেহে হজমক্রিয়া শুরু করে। যাদের কোষ্ঠকাঠিন্য এবং খাবারদাবার হজমে সমস্যা তারা মধু সেবনে উপকার পেতে পারেন।

মধুতে কোনোপ্রকার চর্বি ও কোলেস্টেরল না থাকায় এটি সেবনে হৃদরোগের ঝুঁকি কমে। এছাড়াও যাদের অনেক আগে থেকেই শ্বাসকষ্ট রয়েছে তারাও মধু সেবনে উপকার পেতে পারেন। মধুতে থাকা ক্যালসিয়াম মানবদেহের হাঁড় গঠনে সহায়তা করে। আর এই ক্যালসিয়াম মুখের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধিতেও কার্যকরী ভূমিকা পালন করে। মধু ব্যাতিত পৃথিবীতে বিদ্যমান খুব কম প্রাকৃতিক খাদ্য থেকে সৌন্দর্য বৃদ্ধির গুণাগুণ পাওয়া যায়। 

দৈনন্দিন জীবনে নানা সমস্যার কারণে মানুষ দুশ্চিন্তায় ও অনিদ্রায় ভোগেন। ঘুমানোর পূর্বে মধু সেবনের ফলে এই অনিদ্রা দূর হয়।এছাড়াও যাদের যৌন দুর্বলতা রয়েছে তারাও মধু সেবন করতে পারেন। যেসকল পুরুষরা যৌন দুর্বলতায় ভুগছেন তারা প্রতিদিন ছোলার সঙ্গে মধু সেবনে ভালো ফলাফল পেতে পারেন। যৌন রোগের প্রাকৃতিক ঔধের মধ্যে মধু এখন অবধি সবচেয়ে বেশি কার্যকর ভূমিকা পালন করছে।



খালি পেটে মধুর উপকারিতা

মধু সেবনের কয়েকটি বিশেষ নিয়মের মধ্যে খালি পেটে সেবনের নিয়মটি সবচেয়ে বেশি কার্যকর। খুব সকালে এক গ্লাস কুসুম গরম পানির সাথে এক চামচ মধু ও এক চামচ লেবুর রস মিশিয়ে পান করলে শরীরের অতিরিক্ত ওজন কমে যায়। এই প্রক্রিয়ায় নিয়মিত মধু সেবন করলে শরীরের বিষাক্ত উপাদানগুলো বের হয়ে যায়, লিভার পরিষ্কার হয় এবং মেদ গলে বেরিয়ে আসে।

সকালে খালি পেটে মধু সেবনে আরো নানাবিধ উপকার পাওয়া যায়। বিশেষ করে যারা স্থায়ীভাবে সর্দি, কাশি, কফ ও শ্বাসকষ্টে আক্রান্ত তারা উপকৃত হবেন। ভালো ফল পাওয়ার জন্য প্রতিদিন সকালে মধু সেবন চালিয়ে যেতে হবে। এছাড়াও বদহজম কিংবা ভারী খাবারে যাদের সমস্যা হয় তারা খাবারের পূর্বে এক চামচ মধু সেবন করলে বদহজম থেকে মুক্তি পেতে পারেন।

 

পুরাতন মধুর উপকারিতা

পুরাতন মধু বলতে এক বছর কিংবা তার পূর্বে সংগৃহীত মধুকে বোঝায়। গবেষণায় দেখা গেছে যে, কিছু কিছু ক্ষেত্রে নতুন কিংবা কাঁচা মধুর থেকে ও পুরাতন মধু বেশি কার্যকরী ভূমিকা পালন করে। তবে পুরাতন মধু হৃদরোগ এবং শ্বাসকষ্টে আক্রান্তদের জন্য বেশি উপকারি। এছাড়াও এটি বার্ধক্যজনিত সমস্যায় ভুগতে থাকা পুরুষদের নানাবিধ উপকার করে।

কাঁচা মধুর উপকারিতা
এসিডিটি থেকে বাঁচতে আদা ও লেবুর সাথে কাঁচা মধু মিশিয়ে সেবন করুন।

 

কাঁচা মধুর উপকারিতা

মৌচাক থেকে সংগ্রহ করার পর যে মধু পাওয়া যায় সেটিই কাঁচা মধু (Row Honey)। মধু মৌচাক থেকে সংগ্রহের পর কয়েকটি ধাপে বোতলজাত করা হয়। প্রক্রিয়াজাত মধু থেকে ও কাঁচা মধু বেশি বেশ তাজা হয়ে থাকে। যার কারণে এতে বিশেষ কিছু প্রতিষেধক ও উপকার পাওয়া যায়। আদা কিংবা লেবুর রসের সঙ্গে কাঁচা মধু মিশ্রিত করে খাওয়ার কারণে অ্যাসিডিটি কমে যায়। এছাড়াও বমি বমি ভাব দূর হয় এবং শরীরে তাপ সঞ্চান সঞ্চালনে বৃদ্ধি ঘটে। গর্ভবতী নারীদের গর্ভধারণের প্রথম অবস্থায় কাঁচা মধু সেবনের পরামর্শ দেয়া হয়।

 

রূপচর্চায় মধুর ব্যবহার

ঔষধ হিসেবে মধু যেমন খুব কার্যকর তেমনি নারীদের রূপচর্চায়ও মধুর ব্যাপক কার্যকারিতা লক্ষ্য করা যায়। কৃত্রিম প্রসাধনী ব্যবহারের কারণে যখন ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়তে শুরু করেছিলো ঠিক তখনি গবেষকরা রূপচর্চায় মধুর উপকারিতা প্রমাণ করেন।

লাবণ্যময় চেহারার জন্য মধু বেশ উপকারি। প্রতিদিন এক চামচ মধু মুখে মেখে ১০ মিনিট রাখলে ত্বক সহজেই আর্দ্র হয়না এবং চেহারার উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি পায়। আর এই কাজটি নিয়মিত করলে দীর্ঘ মেয়াদি ফল পাওয়া সম্ভব। এছাড়াও মধুতে থাকা অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল বা জীবাণুনাশক উপাদান মুখের ব্রণ ও কালচে ভাব দূর করে। আর এই সুফল পাওয়ার জন্য এক চামচ মধু ও নারিকেল মিশিয়ে মুখে লাগালে ভাল ফল পাওয়া যায়।

 

চুলের যত্নে মধুর উপকারিতা

বর্তমানে চুলের যত্নেও মধুর ব্যাপক ব্যবহার শুরু হয়েছে। চুলের জন্য উপকারী বেশকিছু উপাদান সঠিক মাত্রায় মধুতে বিদ্যমান থাকায় আজকাল কয়েকটি নামিদামি শ্যাম্পু ও কন্ডিশনার প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান তাদের পণ্যের কার্যকারিতা বৃদ্ধির জন্য মধু ব্যবহার করছে। মধুতে থাকা পুষ্টিগুণ নিস্তেজ চুলকে উজ্জ্বল ও প্রাণবন্ত করে তোলে। দুই চা চামচ মধু পরিমাণমত নারিকেল তেলের সঙ্গে মিশিয়ে চুলে মাখিয়ে ২০ মিনিট থেকে ৩০ মিনিট পর্যন্ত রেখে ধুয়ে ফেলতে হবে। এতে করে কন্ডিশনারের সুফলও পাওয়া যায়। এছাড়াও মধুতে থাকা গ্লুকোজের কারণে চুলের উজ্জ্বলতাও বৃদ্ধি পায়। প্রাকৃতিকভাবে চুলের নানাবিধ যুত্নে মধুর থেকে বেশি উপকারি উপাদান দ্বিতীয়টি এখন অবধি খুঁজে পাওয়া যায়নি।

 

চায়ের সাথে মধুর উপকারিতা

দৈনন্দিন জীবনে আমরা প্রায় সবাই কমবেশি চা পান করে থাকি। আর এই চা যেমনই হোক তাতে মিষ্টি স্বাদ না হলে যেন অসম্পূর্ণ থেকে যায়। চায়ে মিষ্টতা আনতে আমরা সব চেয়ে বেশি ব্যবহার করি চিনি। আর এতেই বিপত্তি ঘটে! কারণ নিয়মিত চিনি গ্রহণ করায় দিন দিন ডায়াবেটিস সহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্তের হার বাড়ছে। ফলে বিশেষজ্ঞরা বরাবরই চায়ে চিনি পরিহার করার পরামর্শ দেন। তবে একাধিক গবেষণার ফলাফল থেকে জানা যায়, চায়ে মিষ্ট স্বাদ পেতে চিনির পরিবর্তে মধু ব্যবহার নিরাপদ।

এক কাপ গরম চায়ে পরিমাণমত মধু মিশ্রিত করে পান করলে শরীরের রক্ত সঞ্চালনে উন্নতি ঘটে। এছাড়াও পুরাতন কাশি থাকলে তা সেরে যায়। বিশেষ করে গ্রিন টি বা হার্বাল টি এর সঙ্গে মধু মিশিয়ে খেলে মানবদেহের ভোকাল কর্ড বা স্বরতন্ত্রী সবসময় নিরাপদ থাকে।

তবে চায়ের সঙ্গে মধু সেবনে শরীরের কোষগুলো সবচেয়ে বেশি উপকৃত হয়। কারণ মধুতে থাকা অ্যান্টি অক্সিডেন্টস ক্যান্সারের কোষ গঠনে বাধা প্রদান করে। শুধু ক্যান্সারই নয়, আরো কয়েকটি মারাত্মক রোগও প্রতিরোধ করে চা এবং মধুর মিশ্রণ। চিনিতে ডায়াবেটিস হওয়ার ঝুঁকি থাকলেও মধুতে এমন ঝুঁকি নেই। হাজার বছর ধরে চায়ে চিনির পরিবর্তে মধুর ব্যবহার হয়ে আসছে। 

ধারনা করা হয়, খ্রিস্টপূর্ব ২৭৩৭ সালে চীনা সম্রাট কাসান নুঙ্গের সময় থেকে চায়ে মধু মেশানোর প্রচলন শুরু হয়। পরে এই পদ্ধতি চীন, জাপান থেকে আস্তে আস্তে ভারতীয় উপমহাদেশে ছড়িয়ে পরে। যদিও আধুনিক যুগে চিনি সহজলভ্য ও সস্তা হওয়ায় চায়ে চিনির ব্যাবহার ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। তবে গবেষকদের মতে খুব শীঘ্রই চায়ে চিনির ব্যবহার সীমিত পর্যায়ে আনা জরুরি। নতুবা হৃদরোগ, ক্যান্সার ও ডায়াবেটিকস জাতীয় রোগির সংখ্যা দ্বিগুণ বৃদ্ধি পাবে। আর চায়ে চিনির বিকল্প হিসেবে মধু হতে পারে সর্বোত্তম।



 

সরিষা ফুলের মধুর উপকারিতা

সহজলভ্য মধুর মধ্যে সরিষা ফুলের মধু অন্যতম। কারণ বর্তমানে যেসকল দেশে বাণিজ্যিকভাবে মধু উৎপাদন হচ্ছে, প্রায় সবখানেই সরিষার চাষকেই কাজে লাগানো হচ্ছে। আর এই সরিষা ফুল থেকে প্রাপ্ত মধুর ঘ্রাণ এবং স্বাদ এক কথায় অসাধারণ। বিশেষ করে সরিষা ফুলের কাঁচা মধু। এতে পাকস্থলীর ক্যান্সার নিরাময়যোগ্য কিছু বিশেষ উপাদান মিশ্রিত থাকে। এছাড়াও সরিষা ফুলের মধু পেশীতে বাহ্যিকভাবে ব্যবহার করলে আঘাতের ব্যাথা কিংবা সাধারণ যে কোনো ব্যাধা উপশম হয়।

 

কালোজিরা ফুলের মধুর উপকারিতা

কালোজিরা মানবদেহের জন্য খুবই উপকারি একটি মশলা দানা। নানানপ্রকার ভেষজগুণ সম্পন্ন হওয়ায়, এর ব্যবহার রান্না ঘর ছাপিয়ে ঔষধালয়েও সুপ্রসিদ্ধ। শরীরের অভ্যন্তরীণ রোগবালাই নিরাময়ে কালোজিরার ব্যবহার প্রাচীন কাল থেকেই হয়ে আসছে। সেই পরিপ্রেক্ষিতে কালোজিরার মধুও বিভিন্ন সময় মানুষের নিকট জনপ্রিয়তা পেয়েছে। তবে কালোজিরার চাষ পৃথিবীর সব অঞ্চলে হয় না বলে এই জাতীয় মধু সহজলভ্য নয়। কালোজিরার ফুলের মধু মূলত পুরুষদের যৌন দুর্বলতা কমায় এবং নানাবিধ যৌন সমস্যার স্থায়ী সমাধান করে।

 

লিচু ফুলের মধুর উপকারিতা

এটি বাজারে পাওয়া সব চেয়ে কম দামে ভাল ফুলের মধু। কারণ এটি সরিষা ও কালোজিরা ফুলের মধুর থেকেও সহজলভ্য এবং দামে সস্তা। তবে লিচু ফুল থেকে প্রাপ্ত মধুর চাহিদাও নেহাতই কম নয়। মূলত শরীরের অতিরিক্ত ওজন কমানোর জন্য সহায়ক ভূমিকা পালন করে এটি। অনেকে সরিষা কিংবা কালোজিরার মধুর ঘ্রাণ সহ্য করতে পারেন না। আর তাদের জন্য ডাক্তাররা সবসময় লিচু ফুলের মধু খাওয়ার পরামর্শ দিয়ে থাকেন।

মধুর অপকারিতা

 

মধুর অপকারিতা

প্রায় প্রত্যেক খাদ্যেরই উপকারি দিকের পাশাপাশি কিছু অপকারি দিকও থাকে। তেমনিভাবে মধুরও কখনো কখনো উপকারের বদল অপকার করে। কারণ সকল ফুলের মধু মানুষের পক্ষে সেবন যোগ্য না। কারণ বনজঙ্গলে থাকা বিষাক্ত ফুলের মধু সেবন করলে নানাবিধ জটিল রোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি থাকে। এমনি এমনই একপ্রকার ফুল হচ্ছে রোডড্রেনডন।

শিশু এবং প্রাপ্তবয়স্কদের মধু সেবনে বেশ নিয়মনীতি রয়েছে। একজন কিশোর যতটুকু মধু সেবন করতে পারবে একজন শিশু কিন্তু ততটুক মধু সেবন করতে পারবে না। যদি শিশুরা মাত্রাতিরিক্ত মধু সেবন করে তবে এলার্জি, পেটে অস্বস্তি এমনকি মারাও যেতে পারে।

বর্তমানে বাজার থেকে ক্রয়কৃত কৃত্রিম রাসায়নিক ওষুধ সেবনের পাশাপাশি মধু সেবন করলে বিষক্রিয়া সৃষ্টি হতে পারে। তবে এমনটা আবার সব ওষুধের ক্ষেত্রে ঘটে না। চা, গরম পানি কিংবা খালি মধু অতিরিক্ত সেবনের কারণে রক্তচাপ বেড়ে যেতে পারে।

যদিও বর্তমান সময়ে মধু প্রক্রিয়াজাতকরণে ব্যাপক উন্নতি সাধিত হয়েছে। বিশেষ করে মধুকে বেশিদেন সংগ্রহে রাখতে বিভিন্নরকম ক্যামিকেল ব্যবহার করছে প্রতিষ্ঠানগুলো। এছাড়াও নকল মধু তৈরিকারী অসাধু ব্যবসায়ীরা তো রয়েছেই। সবমিলিয়ে মধু দ্বারা মানুষের উপকারের বদলে ক্ষতি করার পেছনে সবচেয়ে বেশি দায়ী আধুনিক সংগ্রহ পদ্ধতি এবং নকল মধু প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠানগুলো। এতে করে মানুষ যেমন উপকারের বদল ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে তেমনি নানাপ্রকার রোগেও আক্রান্ত হচ্ছে। তাই পরিশেষে বলতে চাই, মধু আমাদের জন্য স্রষ্টার দানকৃত মহৌষধ হয়েই থাকুক।

আপনার পছন্দের লেখাগুলো নিয়মিত পেতে ইমেইল দিয়ে এখনি সাবস্ক্রাইব করুন।
সর্বশেষ পোস্টগুলো
আমার ওজন কমানোর গল্প

আমার ৩৪ কেজি ওজন কামানোর কথা

home remedies for insomnia

অনিদ্রা দূর করার উপায় । ১০ টি ঘরোয়া ঔষধ

আঁচিলের প্রাকৃতিক চিকিৎসা

আঁচিলের প্রাকৃতিক চিকিৎসা

আমার ওজন কমানোর খাবার তালিকা

আমার ওজন কমানোর খাবার তালিকা বা ডায়েট চার্ট

অতিরিক্ত ওজন কমানোর ঔষধ

ওজন কমানোর প্রাকৃতিক ঔষধ

ওজন বাড়ানোর খাবার তালিকা

কফ কাশির প্রাকৃতিক ঔষধ

কফ বা কাশির প্রাকৃতিক চিকিৎসা

কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার উপায়

কোষ্টকাঠিন্য থেকে মুক্তির উপায়

গরম পানি খাওয়ার উপকারিতা

গরম পানি খাওয়ার ১০ টি উপকারিতা

খুশকি দূর করার উপায়

ঘরে বসে খুশকি দূর করার সহজ ১০টি উপায় । খুশকি দূর করার প্রাকৃতিক শ্যাম্পু

চুল পরা বন্ধের উপায়

চুল পড়া বন্ধের প্রাকৃতিক ঔষধ 

দ্রুত ওজন বাড়ানোর উপায়

দ্রুত ওজন বারানোর উপায়

বমি দূর করার উপায়

বমি দূর করার উপায় | বমি হলে করনীয়

ব্যায়াম ছাড়া ওজন কমানোর উপায়

ব্যায়াম ছাড়া ওজন কমানোর ৯ টি সহজ উপায়

দ্রুত ওজন কমানোর খাবার তালিকা

মাসে ১০ কেজি ওজন কমানোর ডায়েট চার্ট




Categories

মাসে ১০ কেজি ওজন কমানোর ডায়েট চার্ট

দ্রুত ওজন কমানোর খাবার তালিকা

১ মাসে ১০ কেজি ওজন কমানো অসম্ভব নয়। কঠোর ইচ্ছাশক্তি ও পরিশ্রমের মাধ্যেমে এটা করা যায়। আপনার মনও দেহ যদি এটা করতে পুরোপুরি সম্মতি না দেয় তাহলে এটা চেষ্টা করাই ভাল। কেননা শুধু ৭-১০ দিন কষ্ট করার কোন মানে হয় না। আপনি বরং অন্যকোন পদ্ধতি অনুসরণ করুন। আপনি আজ শুরু করলে আজ থেকেই ওজন কমা শুরু করবে না।

Continue reading

দ্রুত ওজন বারানোর উপায়

দ্রুত ওজন বাড়ানোর উপায়

স্বাভাবিকের চেয়ে কম ওজন (underweight) অসুস্থতার পাশাপাশি দৈনন্দিন জীবনে অশান্তির একটি বড় কারণ। ভুক্তভোগীরা দ্রুত ওজন বারানোর উপায় জানার জন্য নানা লোকের নানা পদ্ধতি বা কৌশল অনুসরণ করেন। এসব ছেলে মেয়েদের আমাদের দেশে সবাই একটু বাঁকা চোখে দেখে। এর জন্য তাদের নানা কটু কথা শুনতে হয়। ছেলেদের তুলনায় এটা নিয়ে মেয়েরা বেশি ভুক্তভোগী।

Continue reading

ওজন বাড়ানোর খাবার তালিকা

বেশি খেলে ওজন বাড়ে এটা ভুল ধারণা। আপনার ওজন বাড়ানোর খাবার তালিকায় উচ্চ প্রোটিন, ক্যালরি ও ফ্যাটযুক্ত খাবার থাকতে হবে। না হলে অতিরিক্ত খাওয়ার তুলনায় ওজন বাড়ার হার অনেক কম হবে। আবার অতিরিক্ত খেলে সবাই মোটা হয় না। আর মোটা হলেও, ওজন বাড়ার সাথে নানা রোগব্যাধিও বাড়তে থাকে।

Continue reading