এইডস রোগের উৎপত্তি, লক্ষণ ও চিকিৎসা

সমাজের চোখে এইডস রোগীরা ব্রাত্য। এইডস বেশিরভাগ ক্ষেত্রে অসুরক্ষিত যৌন সঙ্গম থেকে হয়ে থাকে। তবে এটাই এইডস হওয়ার একমাত্র কারণ নয়। ছোট্ট শিশু এইচআইভি পজিটিভ নিয়ে জন্মায় কারণ তার বাবা-মা কেউ একজন এই ভাইরাসের ধারক। তাই, ডাক্তাররা বিয়ের আগে রক্তপরীক্ষা করা আবশ্যক বলে মনে করছেন।

তবে এইচআইভি পজিটিভ নয় এমন ব্যক্তিরাও অনেক সময় এইডসে আক্রান্ত হন। কারণ বিরল প্রজাতির কিছু ক্যানসার থেকেও এইডস হতে পারে। এটি আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা নষ্ট আপনার সুস্থ জীবনধারাকে অস্বাভাবিক করে তুলতে পারে, এজন্য সতর্ক থাকুন।

 

এইডস রোগের উৎপত্তি

কঙ্গোর রাজধানী কিনসাসাতে ১৯২০ সালে প্রথম এইচআইভি ভাইরাসের সংক্রমণ ঘটে। মূলত কঙ্গো ১৯০৮ থেকে ১৯৬০ সাল পর্যন্ত বেলজিয়ান ঔপনিবেশিক শাসনের অধীনে ছিল। ঐসময় প্রতিবছর প্রায় ১০ লাখ লোক রেলে কিনসাসায় যাতায়াত করতো। বিভিন্ন দেশ থেকে লোকসমাগম এবং অস্বাস্থ্যকর জীবন-যাপনের ফলে কঙ্গোতে এইচআইভি’র সংক্রমণ দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে।

এ রোগের বিস্তারের জন্য দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধও অনেকাংশে দায়ী। যুদ্ধকালীন সময়ে একই সিরিঞ্জ বারবার ব্যবহার করে আহত সৈন্যদের অনিরাপদ পদ্ধতিতে চিকিৎসা দেয়ার কারণে সংক্রমণ অতিমাত্রায় বৃদ্ধি পায়। আফ্রিকান দেশগুলোর অনিরাপদ যৌনপল্লীগুলোও এ ভাইরাসের সংক্রমণের অন্যতম কারণ।

১৯৮১ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কেন্দ্রের গবেষকরা সর্বপ্রথম এইডস এর ভাইরাস শনাক্ত করে এর নাম দেন হিউম্যান টি-সেল লিম্ফোট্রপিক ভাইরাস, সংক্ষেপে HTLV (III) । পরবর্তীতে ১৯৮৪ সালে ফ্রান্সের গবেষকরা এ মরণব্যাধি ভাইরাসের নাম দেন ‘লিম্ফাডেনোপ্যাথি অ্যাসোসিয়েটেড ভাইরাস’ (Lymphadenopathy Associated Virus), সংক্ষেপে ‘লাভ’ (LAV)। এর ২ বছর পর এ ভাইরাসের নতুন নামকরণ করা হয় হিউম্যান ইমিউনো ডেফিসিয়েন্সি ভাইরাস (Human Immuno-deficiency Virus-HIV)।

 

এইচ আই ভি/এইডস সংক্রমণের তিনটি ধাপ

এইচআইভি’র সংক্রমণ তিনটি পর্যায়ে হয়ে থাকে। সঠিক সময়ে চিকিৎসা না নিলে এটি আপনার ইমিউনিটি সিস্টেমকে পুরোপুরি নষ্ট করে দিতে পারে।

এই স্তরগুলি হলো –



প্রথম স্টেজ: অ্যাকিউট এইচআইভি ইনফেকশান

প্রাথমিকভাবে এইচআইভি ভাইরাসে সংক্রমিত হলেও মারাত্মক কোনো প্রভাব শরীরে পড়ে না। তবে এইচআইভি সংক্রমিত ব্যক্তি এসময় ঘনঘন অসুস্থ হয়ে পড়তে পারেন। এ শারীরিক অবস্থাকে বলা হয় রেট্রোভাইরাল সিনড্রম বা প্রাথমিক এইচআইভি সংক্রমণ। এইডসের প্রথম স্টেজে ফ্লুর মতো জ্বর হয়, আবার ১-২ সপ্তাহ পরে সেরেও যায়। এছাড়া এ স্তরে এইডস এর আরো বেশ কিছু উপসর্গ দেখা যায়; যেমন- পেটের প্রদাহ, মাথাঘোরা, বমিভাব, ক্লান্তি, পেশীর ব্যথা, গলা ব্যথা, গাঁট ফুলে যাওয়া, শরীরের ঊর্ধ্বাংশ বা টরসোতে লাল লাল গোটা গোটা দাগ, তীব্র জ্বর ইত্যাদি। অসুরক্ষিত যৌন সঙ্গম বা অন্যান্য কারণে এইচ আই ভির ভাইরাস আপনার শরীরে প্রবেশ করতে পারে। এ ভাইরাস প্রতিরোধের জন্য আপনি অ্যান্টি-এইচআইভি ওষুধ খেতে পারেন। তবে ডাক্তারের পরামর্শ নেয়া বাঞ্ছনীয়, কারণ এসব পিইপি (PeP- Post-exposure Prophylaxis) ওষুধের অনেক ক্ষতিকর পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া রয়েছে।

দ্বিতীয় স্টেজ: ক্রনিক এইচআইভি ইনফেকশান

এইচআইভি সংক্রমণের দ্বিতীয় স্তরকে অ্যাসিম্পটোম্যাটিক বা ক্লিনিক্যালি লেটেন্ট পিরিয়ড বলে। এ সময় এইচআইভি’র সংক্রমণ বা এইডস এর লক্ষণ বোঝা যায় না। আর সে কারণেই দ্বিতীয় স্টেজ খুবই ভয়ঙ্কর। আপনি বুঝতেই পারবেন না আপনার শরীরে কতটা শক্তিশালী ভাইরাস বাসা বেঁধে আছে। আর নিজের অজান্তেই রক্তদান বা অন্য কোনো উপায়ে এইচআইভি ভাইরাস অন্যের শরীরে স্থানান্তরিত হয়ে যাবে। ক্রনিক এইচআইভি ইনফেকশানের স্টেজ দশ বছর পর্যন্ত দীর্ঘস্থায়ী হতে পারে।

এ সময় এই ভাইরাস আপনার রক্তের সি-ডি-ফোর-টি কোষের কার্যকারিতা নষ্ট করে দিবে। রক্ত পরীক্ষার মাধ্যমে বোঝা যাবে আপনার রক্তে কি পরিমাণে এ কোষ বিদ্যমান। ইমিউনিটি সিস্টেম ভেঙে পড়ার কারণে আপনার রক্তে এই কোষের সংখ্যা ক্রমশ কমতে থাকবে এবং আপনি আরো দ্রুত অসুস্থ হয়ে পড়বেন। তবে সতর্কতা ও সঠিক চিকিৎসার মাধ্যমে আপনি এই ভাইরাসের বিরুদ্ধে শক্ত প্রতিরোধ গড়ে তুলতে পারেন।

তৃতীয় বা অ্যাডভান্স স্টেজ: এইডস

যখন কারো রক্তে প্রতি মাইক্রো লিটারে সি-ডি-ফোর-টি কোষ ২০০’র নিচে নেমে যায়, তখন ধরে নিতে হবে এটি সংক্রমণের অ্যাডভান্সড্ স্টেজ। আবার যাদের কাপোসি’স সারকোমা (Kaposi’s Sarcoma) বা ত্বকের ক্যানসার এবং নিউমোসাইটিস নিউমোনিয়া (Pneumocystis Pneumonia) থাকে, তাদের এইডস হওয়ার আশঙ্কা অনেক বেশি। এসময় শরীরে ক্লান্তিভাব, গলা ও পেট ও থাইয়ের মাঝ বরাবর অংশে ফোলাভাব, দীর্ঘসময় ধরে জ্বর, রাত্রে ঘাম হওয়া, হঠাৎ করে ওজন কমে যাওয়া, ত্বকের উপর বেগুনি রঙের দাগ, হাঁপানি, অনেক দিন ধরে ডায়রিয়া হওয়া, মুখ, গলা ও ভ্যাজাইনাতে ছত্রাক সংক্রমণ, হঠাৎ করে রক্তক্ষরণ বা চোট পাওয়া ইত্যাদি বিভিন্ন উপসর্গ প্রকাশ পেতে থাকে।

 

এইচআইভি/এইডস এর সংক্রমণ

এইচআইভি ভাইরাস সিডি৪ টি লিমফোসাইট জাতীয় কোষের ভেতর আশ্রয় নিয়ে বেঁচে থাকে। এসব কোষ সহজে ধ্বংস হয় না, কারণ এদের মেটাবলিজম বা বিপাকীয় ক্ষমতা অতি উচ্চ। তাই এগুলোই এইচআইভির মূল লক্ষ্যবস্তু।

সাধারণত বিভিন্ন বডি ফ্লুইড বা শারীরিক তরলের মাধ্যমে একজন থেকে আরেক জনের শরীরে এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ে। রক্ত, সিমেন, ভ্যাজাইনাল ও রেকটাল ফ্লুইড এবং মাতৃদুগ্ধের মাধ্যমে এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা অনেক বেশি।

এছাড়া অন্য যে উপায়ে এইচআইভি ভাইরাস অন্যের শরীরে প্রবেশ করতে পারে-

  • ১। এইচআইভি সংক্রমণ সবচেয়ে বেশি হয়ে থাকে অ্যানাল সেক্সের মাধ্যমে। সমকামী পুরুষ যারা কোনো সুরক্ষা ছাড়া অন্য পুরুষের সঙ্গে যৌন সংসর্গ করেন তাদের মধ্যে সংক্রমণের আশঙ্কা সবচেয়ে বেশি।
  • ২। অসুরক্ষিত বা অন্যের ব্যবহৃত সিরিঞ্জ অথবা সূচ ব্যবহার করলেও এইচআইভি সংক্রমণ হতে পারে।
  • ৩। ট্যাটু করলে বা নাক/কান পিয়ারসিং করলে। যদি এই যন্ত্রগুলো স্টেরিলাইজ না করা হয় তাহলে সংক্রমণের আশঙ্কা থাকে।
  • ৪। কোনো গর্ভবতী মা যদি এইচ আই ভি পজিটিভ হয়, তবে জন্মের পর তার সন্তানের রক্তেও এই ভাইরাস থাকতে পারে।
  • ৫। স্তন্যপানের সময়।
  • ৬। এইচ আই ভি পজিটিভ আছে এমন কেউ যদি আপনাকে রক্ত দেয় তাহলেও এই ভাইরাস আপনার শরীরে প্রবেশ করতে পারে।

 

এইডস এর প্রধান লক্ষণসমূহ

এইচআইভি ভাইরাস শরীরে প্রবেশ করার পর শুরুর কয়েক সপ্তাহের মধ্যে ইনফ্লুয়েঞ্জার ভাব দেখা দিতে পারে। পাশাপাশি কণ্ঠনালীতে ব্যথা ও শরীরে র‍্যাশ দেখা দেয়।

অন্যান্য রোগের মতো সুনির্দিষ্ট কোনো শারীরিক পরিবর্তন এইডস আক্রান্ত রোগীর দেহে দেখা যায়। তবে প্রাথমিকভাবে বেশ কিছু উপসর্গ দেখলে আমাদের এইডস পরীক্ষার জন্য ডাক্তারের শরণাপন্ন হওয়া উচিৎ।

যেমনঃ

  • দীর্ঘ সময় ধরে শরীরে জ্বর থাকা।
  • জিভে,ঠোঁটে,গলায় ও যৌনাঙ্গে ঘা হয়ে যাওয়া।
  • শারীরিক ক্রমান্বয়ে দুর্বল হতে থাকে।
  • কোনও কিছু খাওয়ার সময় মুখে ও গলায় ব্যথা অনুভূত হওয়া।
  • শুকনো কাশি ও শ্বাসকষ্টের সমস্যা।
  • রাতের বেলা সারা শরীরে ঘাম দেখা দেওয়া।
  • শরীরের লিম্ফ নোড বা লাসিকা গ্রন্থি ফুলে যাওয়া।
  • দীর্ঘ সময় ধরে ডায়রিয়া থাকা।
  • শরীরের ওজন কমতে থাকা।
  • ধীরে ধীরে শরীরের অঙ্গ অকেজো হয়ে যাওয়া।
  • মস্তিষ্কে ক্রিপটোকোকাল মিনিঙ্গিটিস নামক এক ধরনের পরজীবির সংক্রমণ দেখা দেয়। ফলে স্মৃতিশক্তি ও দৃষ্টিশক্তি দুর্বল হয়ে পড়া।
  • ঘাড়ে ও বগলে ফোলাভাব দেখা দেওয়া।
  • চোখ, নাক, মুখ, পিঠ, গলায় লাল, গোলাপী অথবা কালো রঙের র‌্যাশ বেরোনো।
  • মুখ ও জিহ্বায় সাদা দাগ পড়ে, এমনকি মুখ বেঁকে যেতে পারে।
  • মহিলাদের ক্ষেত্রে মাসিকে সমস্যা দেখা দিতে পারে। আগের তুলনায় এসময় ব্লিডিং এর পরিমাণ কম হয়।

অনেক সময় রক্ত পরীক্ষায়ও এইডসের জীবাণু ধরা পড়ে না। এইচআইভি ভাইরাস আস্তে আস্তে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা ধ্বংস করে দেয়, ফলে সামান্য অসুখেও মৃত্যুর আশঙ্কা তৈরি হয়ে পড়ে।

 

এইডস রোগী কতদিন বাঁচে

এইডসে আক্রান্ত রোগীর বেঁচে থাকার সম্ভাবনা নেই বললেই চলে। কোনো ব্যক্তির দেহে এইডসের ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার প্রথম দিন থেকেই তার স্বাভাবিক কার্যক্রম ব্যাহত হতে থাকে। কোনো রকম চিকিৎসা ছাড়া এইডস রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিরা প্রায় ৩ বছরের মতো বেঁচে থাকতে পারেন৷ তবে অতিমাত্রায় সংক্রমিত হলে রোগী ১ বছরের বেশি সময় বাঁচতে পারেন না।

অনেকসময় কোনো রোগীর দেহে এইডসের সম্পূর্ণ বিকাশ হতে ১০ বছরের মতো সময় লাগে। বিভিন্ন এন্টি রেট্রোভাইরাল ড্রাগ ব্যবহার করে রোগীর দেহে এইচআইভি ভাইরাসের ব্যাপ্তিকাল বাড়ানো যায়। তবে সব রোগীর দেহে এসকল ঔষধ পরিপূর্ণভাবে কার্যকর হয় না। এইডসে আক্রান্ত অধিকাংশ রোগীই রোগটি সম্পর্কে সঠিকভাবে অবগত না হওয়ায়, নিজের অজান্তেই রোগীর দেহে এইআইভি পূর্ণমাত্রায় ছড়িয়ে পড়ে। তবে বর্তমান সময়ে সঠিক প্রতিরোধ ব্যবস্থার কারণ এইচআইভি পজিটিভ ব্যক্তিও দীর্ঘদিন সুস্থ জীবনযাপন করতে পারছেন।


ডায়াগনোসিস বা এইডস টেস্ট

এইডস রোগের সংক্রমণ নির্ণয়ের দুটি প্রধান উপায় রয়েছে। প্রথমত, রোগীর দেহে সরাসরি এইচআইভি ভাইরাস শনাক্ত করা, দ্বিতীয়ত, ভাইরাসের বিরুদ্ধে তৈরি হওয়া অ্যান্টিবডিগুলো শনাক্ত করার মাধ্যমে এইডস টেস্ট করা। বেশিরভাগ সময়ই রক্ত কিংবা লালার মাধ্যমে রোগীর দেহে এইচআইভির সংক্রমণ জীবাণু পরীক্ষা করা হয়।

চিকিৎসা ব্যবস্থার উন্নতির ফলে এখন ‘ফোর্থ জেনারেশন এইচআইভি টেস্ট’ করানো সম্ভব। আগে পরীক্ষার মাধ্যমে শুধু এইচআইভি’র অ্যান্টিবডি শরীরে রয়েছে কিনা তা জানা যেত। এখন এইচআইভি অ্যান্টিবডির সঙ্গে p24 antigens-এর উপস্থিতিও নির্ণয় করা সম্ভব।

এছাড়া কেউ চাইলে ঘরে বসে নিজের দেহে এইচআইভির পরীক্ষা করতে পারেন। ‘ওরাকুইক’ নামের একটি যন্ত্রের সাহায্যে লালা পরীক্ষার মাধ্যমে এইডসের উপস্থিতির পরীক্ষা করা যায়।

 

এইডস এর চিকিৎসা

এইচআইভি রোগীর দেহে অন্যান্য সংক্রামক রোগ, যেমন হেপাটাইটিস বি বা যক্ষা ইত্যাদির প্রাদুর্ভাব দেখা দিতে পারে। অনেকসময় নার্ভের সমস্যা, হার্টের সমস্যা বা ক্যান্সারের মতো কঠিন রোগও দেখা দেয়। এমনকি গনোরিয়া, ক্ল্যামেডিয়া, সিফিলিসের মতো মারাত্মক যৌনরোগেও সংক্রমিত হওয়ার আশঙ্কা থাকে।

এইচআইভি’র চিকিৎসা সম্পূর্ণভাবে নির্ভর করে আক্রান্ত ব্যক্তির শারীরিক অবস্থার উপরে। যদি রোগীর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম থাকে তবে তাকে নানা ধরনের অ্যান্টিরেট্রোভাইরাল ওষুধ সেবনের পরামর্শ দেয়া হয়।

পাশাপাশি ইমিউনিটি সিস্টেমে ভারসাম্য রাখতে করণীয়:

# পরিমিত পরিমাণে সুষম খাদ্য গ্রহণ করতে হবে৷ যেসব খাবার সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়াতে পারে, সেগুলি এড়িয়ে চলুন; যেমন: কাঁচা মাংস। যথাসম্ভব রান্না করা খাবার খাওয়ার চেষ্টা করুন।

# নিয়মিত ব্যায়াম করুন।

# পর্যাপ্ত পরিমাণ বিশ্রাম নিন।

এইডস রোগীর জন্য বন্ধুবান্ধব, পরিবার এবং সমাজের মানুষদের মানসিক সমর্থন অনেক গুরুত্বপূর্ণ।

 

এইডস এর ঔষধ

ফিউশন ইনহিবিটর্স এইডস এর চিকিৎসায় খুবই কার্যকরী ওষুধ যা শরীরের CD4 কোষগুলোতে এইচআইভি ভাইরাস প্রবেশে বাধা দেয়। এইচআইভি অতি অভিযোজনক্ষম হওয়ায় এটি সরাসরি দেহের টি-সেলগুলোকে সংক্রমিত করে এবং এসব সেলের প্রোটিন গ্রহণ করে স্বল্পসময়েই বংশবিস্তার করে। ইসিডিফোর-এলজি ওষুধ কোষের অভ্যন্তরে থাকা প্রোটিনের কার্যক্রম নিয়ন্ত্রণ করে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এইডস এর চিকিৎসায় জিডোবোডিন, ল্যামিবোডিন, নেভিরাপিন, টেনোফোবিন ইত্যাদি ওষুধ প্রেসক্রাইভ করে থাকে।

এইডসের চিকিৎসায় ব্যবহৃত আরো কিছু অ্যান্টিবায়োটিকস্:

Alltera Alltera
Valten 300 Mg
Saquin Saquin 500 Mg
Ritocom 50 Mg/200 Mg
Heptavir 10 Mg
Lamimat
Dinosin 100 Mg Tablet
LAMIVIR 100MG
Dinex Ec 400 Mg

 

এইডস এর ভ্যাকসিন

এইচআইভি ভাইরাস শরীরে প্রবেশ করে শরীরের রোগ প্রতিরোধক কোষ যেমন হেলপার টি সেল, মনোসাইট, ম্যাক্রোফেজ, ডেনপ্রাইটিক সেল, চর্মের ল্যাঙ্গারহেন্স সেল, মস্তিষ্কের গ্লায়াল সেল ইত্যাদিকে আত্রমণ করে এবং ধীরে ধীরে এগুলোর কার্যকারিতা নষ্ট করে দেয়। তখন যে কোনো সংক্রামক জীবাণু সহজেই এইচআইভি আক্রান্ত ব্যক্তিকে আক্রমণ করতে পারে।

এইচআইভি সংক্রমণ প্রতিরোধে মূলত দু’ধরনের ভ্যাক্সিন প্রয়োগ করা হয়। প্রথমটি হলো প্রিভেন্টিভ বা প্রতিরোধমূলক ভ্যাক্সিন। এটি এইচআইভি নেগেটিভ ব্যক্তিদের জন্য। মৃত এইচআইভি ভাইরাস শরীরে প্রবেশ করিয়ে অ্যান্টিবডি উৎপাদনের মাধ্যমে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে তোলা হয়। আর অন্যটি হলো থেরাপিউটিক ভ্যাক্সিন, যা আক্রান্ত ব্যক্তির দেহে সংক্রমণকে নিয়ন্ত্রণ করবে এবং রোগের বিস্তারকে বাধাগ্রস্ত করবে। এই ভ্যাক্সিনগুলো শরীরের সংক্রমিত হওয়া কোষগুলো খুঁজে বের করে এবং তাদের কপি বা প্রতিলিপি তৈরি করতে বাধা দেয়।

যুক্তরাজ্যের একটি সফল গবেষণায় দেখা যায়, এইচআইভি ভাইরাসমুক্ত একজন সুস্থ মানুষের অস্থিমজ্জা প্রতিস্থাপনের মাধ্যমেও এইডসে আক্রান্ত ব্যক্তির দেহকে সফলভাবে এইডসের ভাইরাসমুক্ত করা যায়। প্রক্রিয়াটি এইডস রোগের ভবিষ্যৎ চিকিৎসা পদ্ধতির উন্নতি সাধনের জন্য যুগান্তকারী পদক্ষেপ।

 

এইডস প্রতিরোধে করণীয়

এইচআইভির প্রতিরোধের মূল উপজীব্য হলো শিক্ষা, সচেতনতা, ঝুঁকির মাত্রা সম্পর্কে সঠিক জ্ঞান ও ধারণা। মানুষের চিন্তায় এবং আচরণের ইতিবাচক পরিবর্তনও অত্যন্ত জরুরি। ধর্মীয় অনুশাসন মেনে চলা এইডস প্রতিরোধের অন্যতম উপায়। যৌন সম্পর্কের ক্ষেত্রে ধর্মীয় ও সামাজিক অনুশাসন মেনে চলতে হবে। বিবাহপূর্ব যৌন সম্পর্ক এড়িয়ে চলুন। এবং একাধিক যৌন সঙ্গী পরিহার করুন। নিরাপদ যৌনক্রিয়ার অভ্যাসের মাধ্যমে অসংক্রমিত মানুষ এইচআইভি সংক্রমণ থেকে মুক্ত থাকতে পারেন।

পাশাপাশি ইনজেকশনের মাধ্যমে শরীরে ড্রাগ নেয়া থেকে বিরত থাকুন। সূচ, সিরিঞ্জ, ব্লেড বা অন্যান্য যন্ত্রপাতি একাধিকবার ব্যবহার পরিহার করতে হবে। রক্ত গ্রহণ বা অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ প্রতিস্থাপনের পূর্বে অবশ্যই জেনে নিতে হবে দাতা ব্যক্তি এইচআইভি নেগেটিভ কিনা। যৌনরোগ বা প্রজননতন্ত্রের সংক্রমণ থাকলে এইচআইভি আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বেড়ে যায়। কেউ যৌনরোগে আক্রান্ত হলে দ্রুত চিকিৎসা নিন।

এইচআইভি আক্রান্ত মায়ের থেকে সন্তানের আক্রান্ত হওয়ার অনেকখানি আশঙ্কা রয়েছে। এজন্য সন্তান নেয়ার পূর্বে প্রয়োজনীয় পরীক্ষা সম্পন্ন করুন। তবে যেসব মায়েরা থেরাপি গ্রহণ করেন, তাদের ক্ষেত্রে গর্ভস্থ সন্তান আক্রান্ত হওয়ার হার খুবই কম। যেসব মহিলা এইডসে আক্রান্ত, ডাক্তারগণ তাদের সন্তানদেরকে বুকের দুধ পান করানোর ক্ষেত্রে নিরুৎসাহিত করেন।

জনসচেতনতা বাড়াতে বিভিন্ন প্রচার মাধ্যমের সাহায্যে প্রতিরোধমূলক তথ্য জনগণের কাছে পৌঁছে দিতে হবে। এইচআইভি পজিটিভ হলেই তৎক্ষণাৎ মৃত্যু ঘটবে না, তবে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের মাধ্যমে একজন রোগী দীর্ঘদিন বেঁচে থাকতে পারবেন। রোগীর আশা ও আত্মবিশ্বাস এ ক্ষেত্রে অত্যন্ত জরুরি।

 

এইচআইভি/এইডস প্রতিরোধে পিতা-মাতা ও অভিভাবকদের ভূমিকা

এইডস প্রতিরোধে সচেতনতাই হতে পারে সবচেয়ে বড় হাতিয়ার। পিতা-মাতা ও অভিভাবকগণ তাদের সন্তানদের এইচআইভি/এইডস প্রতিরোধ সংক্রান্ত সঠিক তথ্য দিতে পারেন।

যেমন:

  • এইচআইভি/এইডস ও অন্যান্য যৌনরোগ এবং প্রজনন স্বাস্থ্য বিভিন্ন বিষয়ে সন্তানদের খোলামেলো আলোচনায় অংশ নিতে উৎসাহিত করুন।
  • জীবনভিত্তিক শিক্ষা প্রদানের মাধ্যমে আত্ননির্ভরশীল করে গড়ে তুলুন ও ঝুঁকিপূর্ণ আচরণ থেকে বিরত থাকতে পরামর্শ দিন।
  • নেশাজাতীয় দ্রব্য গ্রহণ থেকে বিরত রাখুন এবং পুনর্বাসনের ব্যবস্থা নিন।
  • স্ব-স্ব ধর্মীয় মূল্যবোধ, অনুশাসন ও আদেশ মেনে চলার পরামর্শ দিন।
  • পাঠ্যপুস্তকে অর্ন্তভুক্ত এইচআইভি ও এইডস বিষয় ও এ সংক্রান্ত বইপত্র/পুস্তিকা সংগ্রহ করে পড়তে উৎসাহিত করুন এবং আলোচনায় অংশ নেয়ার সুযোগ করে দিন।
  • যুবসমাজের উপযোগী বিভিন্ন কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করতে উৎসাহিত করুন।

 

এইচ আই ভি/এইডস কখন সংক্রমিত হয় না:

১। এইচআইভি ভাইরাস বাতাস বা পানির মাধ্যমে ছড়ায় না।

২। কোনো এইডস আক্রান্ত ব্যক্তিকে স্পর্শ করলে।

৩। এইডস রোগীর সঙ্গে করমর্দন করলে বা তাকে জড়িয়ে ধরলে।

৪। এইচ আই ভি পজিটিভ কারো সঙ্গে এক টেবিলে বা এক থালায় খেলে বা তার গ্লাসে কোনো পানীয় পান করলেও এইডস হয় না।

৫। এইডস রোগীর তোয়ালে, বিছানা বা বালিশ ব্যবহার করলেও এইডস হয় না।

৬। এইডস আক্রান্ত ব্যক্তির ব্যবহৃত ওয়াশরুম ব্যবহার করলে।



বাংলাদেশে এইডস এর চিকিৎসা

এইচআইভি সংক্রমণ শুধু একটি স্বাস্থ্যগত সমস্যা নয়, বরং আক্রান্ত ব্যক্তির ওপর সামাজিক, পারিবারিক, আর্থিক ও মানসিক প্রভাব প্রবলভাবে পরিলক্ষিত হয়। ধর্মীয় ও সামাজিক মূল্যবোধের কারণে অন্যান্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশে এইচআইভি সংক্রমণের হার অনেক কম; মোট জনসংখ্যার ০.১ শতাংশ। তবে নতুন রোগীর সংখ্যা ক্রমান্বয়ে বাড়ছে।

আর্থ-সামাজিক ও ভৌগোলিক অবস্থানের কারণে বস্তিতে বসবাস করা জনগোষ্ঠী এইচআইভি আক্রান্তের ঝুঁকির তালিকায় রয়েছেন। এখন নারী-পুরুষ যৌনকর্মী ছাড়াও বিবাহিত দম্পতিদের মাধ্যমেও এ রোগের বিস্তার ঘটছে। নারীদের মধ্যে এইচআইভি ছড়িয়ে পড়াকে বৈশ্বিকভাবে মহামারীর অশনি সঙ্কেত হিসেবে দেখা হয়। বাংলাদেশের পার্বত্য চট্টগ্রামের জেলাগুলোতে এইডসের বিষয়ে নজরদারির সুযোগ একদমই সীমিত।

তাছাড়া লাখ লাখ বাংলাদেশি শ্রমিক মধ্যপ্রাচ্য আর ইউরোপে অভিবাসী হয়েছেন। তারা সেখানে প্রধানত কায়িক শ্রম করেন। অভিবাসী শ্রমিকদের মধ্যে এইচআইভির সংক্রমণ অনেক বেশি। অজ্ঞতার কারণে এইডসে আক্রান্ত হলে পরবর্তীতে তারা অনুতপ্ত হন।

বাংলাদেশে ১৯৮৯ সালে প্রথম এইডস রোগী পাওয়া যায়। এরপর এইডস রোগী প্রতি বছর ধীরে ধীরে বাড়ছে। সুইস রেড ক্রিসেন্টের তত্ত্বাবধানে ২০০৫ সালে বেসরকারিভাবে সর্বপ্রথম দেশে এইচআইভি/এইডস রোগীদের শনাক্তকরণ ও চিকিৎসা শুরু হয়। এরপর উন্নয়ন সহযোগী গ্লোবাল ফান্ড এবং সেভ দ্যা চিলড্রেন এবং বিভিন্ন এনজিওর আর্থিক সহায়তায় এ কাজ চলতে থাকে। তবে তারা মূলত এইডস রোগী ও ঝুঁকিপূর্ণ গোষ্ঠীগুলোর কাছে ওষুধ ও অন্যান্য সরঞ্জাম পৌঁছে দেয়ার কাজ করতো। সে সময় এনজিগুলোর শুধু ওষুধ সরবরাহ করতে ব্যয় হতো প্রায় ১৪ কোটি টাকা।

সরকারিভাবে ২০১৬ সাল থেকে এইডসের চিকিৎসা ও পুনর্বাসন পরিচালিত হচ্ছে। একই বছর থেকে এসব কর্মসূচী সরাসরি স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এএসপি কর্মসূচির মাধ্যমে পরিচালিত হতে শুরু করে। এতে বিপুল পরিমাণ টাকা সাশ্রয় হচ্ছে। আর রোগীরাও আগের তুলনায় বেশি সেবা পাচ্ছেন। সরকারের বিভিন্ন কর্মসূচির কারণে খরচ আগের তুলনায় প্রায় অর্ধেকে নেমে এসেছে। পাশাপাশি বেড়েছে সেবার পরিধি। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষরা বলছেন, ২০৩০ সালের মধ্যে এইডস মুক্ত হবে বাংলাদেশ।

এ কর্মসূচির আওতায় বর্তমানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ), চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, এমএজি ওসমানি মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল সিলেট, খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল এবং রাজধানীর সংক্রামক ব্যাধি হাসপাতালে রোগীদের নিয়মিত ওষুধ ও চিকিৎসা সহায়তা দেওয়া হচ্ছে।

‘প্রিভেনশন মাদার টু চাইল্ড ট্রান্সমিশন (পিএমটিসিটি)’ প্রকল্পের আওতায় শুধু বিএসএমএমইউ-তে এইডসে আক্রান্ত ৬৪ জন রোগী চিকিৎসাধীন। এর মধ্যে ৫২ জন মা সন্তান প্রসব করেছেন। নবজাতকদের ৫০ জনই এইচআইভি মুক্ত, ১ জন এইচআইভি নিয়ে জন্মগ্রহণ করেছে এবং একজন মারা গেছে। এছাড়া একই সময়ে সিলেটে ২৬ জন অন্তঃসত্তার মধ্যে ২৪ জন এইচআইভিমুক্ত সুস্থ সন্তান প্রসব করেছেন।

এইচআইভি/এইডস নির্মূলে আত্মনিয়ন্ত্রণ ও ইতিবাচক মনোবৃত্তির পরিচর্যা, উন্নত মননশীলতা এবং সুকুমারবৃত্তির অনুশীলন একান্তই জরুরি। নারী বা পুরুষ, যে কেউ এইচআইভি সংক্রমিত হলে, তাকে ভয় পাওয়া, ঘৃণা করা বা তার কাছ থেকে দূরে থাকা উচিৎ নয়। তার প্রতি সমবেদনা জানানো, যত্ন করা ও প্রয়োজনীয় সহযোগিতা করা আমাদের সবার দায়িত্ব। আসুন আমরা ঐক্যের হাত তুলি, এইচআইভি প্রতিরোধ করি।

Source:

https://www.healthline.com/health/hiv-aids
https://www.medicalnewstoday.com/articles/17131
https://medbroadcast.com/condition/getcondition/hivaids
https://www.healthxchange.sg/men/health-scares-outbreaks/hiv-symptoms-causes-prevention

আপনার পছন্দের লেখাগুলো নিয়মিত পেতে ইমেইল দিয়ে এখনি সাবস্ক্রাইব করুন।
সর্বশেষ পোস্টগুলো
আমার ওজন কমানোর গল্প

আমার ৩৪ কেজি ওজন কামানোর কথা

home remedies for insomnia

অনিদ্রা দূর করার উপায় । ১০ টি ঘরোয়া ঔষধ

আঁচিলের প্রাকৃতিক চিকিৎসা

আঁচিলের প্রাকৃতিক চিকিৎসা

আমার ওজন কমানোর খাবার তালিকা

আমার ওজন কমানোর খাবার তালিকা বা ডায়েট চার্ট

অতিরিক্ত ওজন কমানোর ঔষধ

ওজন কমানোর প্রাকৃতিক ঔষধ

ওজন বাড়ানোর খাবার তালিকা

কফ কাশির প্রাকৃতিক ঔষধ

কফ বা কাশির প্রাকৃতিক চিকিৎসা

কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার উপায়

কোষ্টকাঠিন্য থেকে মুক্তির উপায়

গরম পানি খাওয়ার উপকারিতা

গরম পানি খাওয়ার ১০ টি উপকারিতা

খুশকি দূর করার উপায়

ঘরে বসে খুশকি দূর করার সহজ ১০টি উপায় । খুশকি দূর করার প্রাকৃতিক শ্যাম্পু

চুল পরা বন্ধের উপায়

চুল পড়া বন্ধের প্রাকৃতিক ঔষধ 

দ্রুত ওজন বাড়ানোর উপায়

দ্রুত ওজন বারানোর উপায়

বমি দূর করার উপায়

বমি দূর করার উপায় | বমি হলে করনীয়

ব্যায়াম ছাড়া ওজন কমানোর উপায়

ব্যায়াম ছাড়া ওজন কমানোর ৯ টি সহজ উপায়

দ্রুত ওজন কমানোর খাবার তালিকা

মাসে ১০ কেজি ওজন কমানোর ডায়েট চার্ট




Categories